SEALDAH - BARRACKPORE SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131213SDAH6:48BP7:2431214BP7:40SDAH8:50
231215SDAH7:33BP8:0831216*BP8:22SDAH9:05
331217*SDAH7:46BP8:2731218*BP8:35SDAH9:17
431219SDAH8:00BP8:3831220*BP8:48SDAH9:33
531221SDAH8:13BP8:5231222BP9:02SDAH9:45
631223SDAH8:38BP9:1831224*BP9:57SDAH10:38
731225*SDAH9:05BP9:4531226BP10:16SDAH10:57
831227SDAH9:28BP10:0631228BP10:30SDAH11:12
931229*SDAH9:40BP10:1831230BP11:00SDAH11:42
1031231SDAH10:05BP10:4531232BP14:42SDAH15:20
1131237SDAH16:08BP16:4831238BP19:25SDAH20:05
1233231SDAH18:17BP18:4231240BP20:27SDAH21:07

SEALDAH - NAIHATI SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131411SDAH4:40NH5:4031414NH4:50SDAH5:55
231413SDAH6:38NH7:4034052NH5:52BGB7:09
331471BNXR7:15NH8:1231416*NH7:52SDAH8:58
431415SDAH7:52NH8:5531418NH8:30SDAH9:38
531051BGB7:12NH9:1731420NH9:10SDAH10:13
631417*SDAH9:34NH10:3631422NH9:27SDAH10:30
731419SDAH10:45NH11:4631424*NH10:47SDAH11:52
831421SDAH11:15NH12:1831426NH12:00SDAH13:05
931423*SDAH12:20NH13:2431430NH13:20SDAH14:25
1031427SDAH13:52NH14:5531432*NH13:40SDAH14:42
1131053BGB14:03NH16:0631436NH17:22SDAH18:25
1231429SDAH16:02NH17:0734054NH18:38BGB19:57
1331431SDAH16:32NH17:3831438NH19:20SDAH20:24
1431433SDAH17:22NH18:2731440*NH19:47SDAH20:48
1531435*SDAH18:05NH19:1031442NH20:15SDAH21:20
1631437*SDAH18:35NH19:3931444NH21:08SDAH22:13
1731055BGB17:52NH20:0031446NH21:38SDAH22:45
1831439SDAH19:42NH20:4531448*NH22:08SDAH23:12
1931441*SDAH20:52NH21:54
2031445SDAH22:22NH23:27
2131447SDAH23:15NH0:27

SEALDAH - KRISHNANAGAR SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131811SDAH3:20KNJ5:4831812KNJ4:20SDAH6:45
231571RHA5:47KNJ6:5231814KNJ5:00SDAH7:12
331813*SDAH5:20KNJ7:4231584KNJ7:02STB7:40
431815SDAH6:10KNJ8:3431818KNJ7:04SDAH9:22
531585STB8:35KNJ9:1331802*KNJ8:40SDAH11:00
631817SDAH6:55KNJ9:2231822KNJ9:50SDAH12:10
731821SDAH9:35KNJ11:5031824KNJ12:07SDAH14:25
831825SDAH10:52KNJ13:1531828KNJ14:17SDAH16:15
931827SDAH12:05KNJ14:2631830KNJ15:20SDAH17:37
1031829SDAH13:15KNJ15:3531832KNJ16:20SDAH18:40
1131831SDAH15:25KNJ17:5031834KNJ18:32SDAH20:58
1231833SDAH16:16KNJ18:3531836KNJ19:24SDAH21:43
1331835SDAH17:36KNJ19:4931838KNJ20:25SDAH22:25
1431837SDAH18:42KNJ20:5931844KNJ22:17SDAH0:40
1531841SDAH19:35KNJ21:27

SEALDAH - GEDE SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131741RHA4:42GEDE5:3531912GEDE3:50SDAH6:25
231747RHA8:45GEDE9:3731914GEDE5:02SDAH7:37
331913SDAH7:40GEDE10:2531742GEDE6:22RHA7:12
431915SDAH9:58GEDE12:4231916GEDE7:07SDAH9:52
531751RHA13:40GEDE14:3231746GEDE9:47RHA10:42
631917SDAH12:45GEDE15:4031920GEDE10:40SDAH13:14
731753RHA15:25GEDE16:1731922GEDE14:02SDAH16:58
831759RHA17:25GEDE18:2231924GEDE15:35SDAH18:12
931755RHA18:20GEDE19:1731750GEDE16:30RHA17:20
1031921SDAH17:15GEDE19:5831754GEDE18:30RHA19:22
1131923SDAH18:20GEDE21:0631760GEDE19:12RHA20:10
1231925SDAH19:28GEDE22:1031926GEDE19:54SDAH22:35
1331929SDAH21:35GEDE0:1531928GEDE21:25SDAH0:02

SEALDAH - SHANTIPUR SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131781RHA8:15STB8:4231512STB3:22SDAH5:40
231515SDAH7:25STB9:4231514STB4:46SDAH7:05
331517SDAH8:50STB11:0831516STB5:52SDAH8:07
431519SDAH10:32STB12:5031518STB7:28SDAH9:40
531783RHA13:05STB13:3231782STB8:58RHA9:22
631521SDAH11:35STB13:5831586KNJ9:25STB10:02
731523SDAH13:00STB15:2031522STB10:05SDAH12:22
831525SDAH14:20STB16:3831784STB10:46RHA11:12
931527SDAH15:45STB18:0531524STB11:30SDAH13:42
1031529SDAH16:57STB19:1831526STB13:12SDAH15:31
1131531SDAH17:52STB20:0031786STB14:07RHA14:35
1231533SDAH18:50STB21:1031528STB14:27SDAH16:40
1331535SDAH19:50STB22:1031530STB15:40SDAH17:55
1431537SDAH20:45STB23:0331532STB17:10SDAH19:25
1531534STB18:28SDAH20:45
1631536STB19:52SDAH22:05
1731538STB20:55SDAH23:15

SEALDAH - KALYANI SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
131311SDAH4:12KLYM5:4331312KLYM5:02SDAH6:30
231313SDAH5:30KLYM7:0031314KLYM6:02SDAH7:30
331315SDAH6:30KLYM7:5831316KLYM7:10SDAH8:40
431317SDAH7:18KLYM8:4831318KLYM9:15SDAH10:45
531319SDAH8:30KLYM10:0031320KLYM10:12SDAH11:35
631321SDAH9:20KLYM10:5231322KLYM13:18SDAH15:06
731323SDAH11:22KLYM12:5231324KLYM14:16SDAH15:45
831325SDAH12:30KLYM14:0331326KLYM15:20SDAH16:50
931327SDAH13:35KLYM15:0731328KLYM16:32SDAH18:00
1031329SDAH14:40KLYM16:1031330KLYM17:32SDAH19:05
1131331SDAH15:35KLYM17:0631332KLYM19:07SDAH20:35
1231333SDAH16:50KLYM18:2031334KLYM20:02SDAH21:32
1331335SDAH18:12KLYM19:4631336KLYM21:14SDAH22:45
1431337SDAH19:10KLYM20:3431338KLYM22:12SDAH23:42
1531339SDAH20:05KLYM21:4030128KLYM8:12KOAA9:44
1631341SDAH22:00KLYM23:28

SEALDAH - LALGOLA SECTION

SL NOTRAINFROMDEPTOARR TRAINFROMDEPTOARR
153171SDAH3:45LGL9:3563108LGL4:50SDAH9:57
253175SDAH12:40LGL18:2513104LGL5:40SDAH10:40
353177SDAH16:40LGL21:5553176LGL7:15SDAH12:45
413103SDAH18:20LGL23:0553186LGL7:50SDAH13:05
563103SDAH19:20LGL0:0253178LGL9:10SDAH15:10
663105SDAH20:20LGL1:0563104LGL11:12SDAH16:00
753181SDAH23:30LGL5:0053172LGL22:05SDAH4:30
813113KOAA6:50LGL11:3013118LGL7:00KOAA11:35
953179KOAA14:00LGL19:3553180LGL14:25KOAA20:20
1013117KOAA16:10LGL20:5513114LGL16:30KOAA21:40

 

 

Barrackpore to Sealdah station list

Barrackpore -> Titagarh -> Khardah -> Sodepur -> Agarpara -> Belgharia -> Dumdum -> Bidhannagar Road -> Sealdah

Sealdah To Barrackpore Station List

Sealdah -> Bidhannagar Road -> Dumdum -> Belgharia -> Agarpara -> Sodepur -> Khardah -> Titagarh -> Barrackpore

Staff Special train Timetable Barrackpore to sealdah

Train NO From Time To Time

1206 BP 8:35 SDAH 9:17
1208 BP 8:48 SDAH 9:33
1210 BP 9:02 SDAH 9:45
0110 BP 9:34 BBDB
1212 BP 9:57 SDAH 10:38
1214 BP 10:30 SDAH 11:12
0112 BP 17:20 MJT
3232 BP 18:52 DDJ 19:17
1204 BP 19:25 SDAH 20:05
1202 BP 20:27 SDAH 21:07

First Train From Barrackpore To Sealdah

Naihati Local at 4:27 AM

Barrackpore Station Phone Number/ Railway Enquiry

033 2592 0017

Barrackpore Station Pin Code

700120

Barrackpore Station code

The station code name of Barrackpore is 'BP'

Barrackpore to Sealdah Train Fare

Rs.10

Jibok Polyclinic Doctors List and Phone Number

BOOKING TIME : 8.30AM TO 9.00PM

CALL : 9831399839/6289933019/2594-8662/2594-5968/2592-0716

32/3, Barasat Road, (near 15no. Railway Gate), Barrackpore, APPROVED BY C.M.O.H. GOVT. OF WB

 

DOCTOR’S NAME DAY TIME
Const : CHILD SPECIALIST

DR. SAYAN BOSE MD(PAED.) M.R.C.P.C.H.I ,,II(U.K)

MON

THURSDAY
TUES, WED, FRI,SAT & SUN

5.30PM TO .30PM

7.00PM TO 8.00PM

11.00AM TO 12.00NOON

Const : PEDIATRIC SURGEON

DR. SUJOY MAITRA MS,DNB, MCH, MRCS (ENG) FMAS (Pediatric Surgeon) Assistant Prof. Medical College

TUESDAY 5.00PM TO 6.00PM
Const: CARDIOLOGIST(INTERVENTIONAL)

PROF. (DR.) AMAL KUMAR KHAN MD (MED), DM (CARDIO), Ex- SSKM Hospital

DR. PRADIP SAHA MD (MED), DM (CARDIO), R.G Kar Hospital

DR. ANINDAYA SARKAR MD,DM (CARDIO),MRCP (II) (Uk),SSKM Hosp.

WEDNESDAY

SATURDAY

MONDAY

 

3.30PM TO 5.30PM

7.00PM TO 8.00PM

4.30PM TO 5.30PM

Const : PHYSICIAN & CARDIOLOGIST

PROF. (DR.) H. S. PATHAK MD(MED), JNM Hospital (Kalyani)

PROF. (DR.) JYOTIRMOY PAL MD,FICP,FACP, FRCP,R G Kar Medical College

DR. R. N. MAITY MD (MED), EX-Gandhi Hospital

DR.PROBIR GANGULY MD (MED) DIP.CARD, Neheru Hospital

(MONDAY FRIDAY)

MONDAY, THURSDAY

TUESDAY, SATURDAY

FRIDAY

(9.00PM TO 10.00PM

5.00PM TO 6.00PM)

7.00 PM TO 9.00PM

7.30PM TO 9.00PM

07.00PM TO 8.00PM

Const : DIABETOLOGIST & ENDOCRINOLOGIST

DR. SUJIT BHATTACHARYA MD, DM (PGI) , DNB, MRCP(UK),CMRI Hospital

DR. KAUSTUBH CHATTERJEE D.C.H, M.D (MED) DM (ENDO), Asst.Prof,NRS

DR. ARJUN BAIDYA MD,DM (ENDOCRINOLOGY)SSKM HOSPITAL

WEDNESDAY (1st week & 3rd week)

THURSDAY

MONDAY

5.00PM TO 8.00PM

3.00PM

3.00 PM TO 5.00 PM

03.00PM TO 6.30PM

Const : RHEUMATOLOGY &PHYSICAL MEDICINE

DR. JAYANTA SAHA MD (KOL) PHYSICAL MED. RHEUMATOLOGY

WEDNESDAY

SATURDAY

7.00PM TO 9.00PM

04.00PM TO 6.00 PM

Const : ORTHOPAEDIC SURGEON

DR. SANTANU BANERJEE MS(ORTHO) KOL

DR.GOURAB CHATTERJEE MBBS,DNB (Ortho),R.G Kar Hospital

(TUESDAY

WEDNESDAY

THURSDAY

FRIDAY

SATURDAY

SUNDAY)

SAT & WEDNESDAY

10.30AM TO 12.30PM

2.00PM TO 4.00PM

7.30PM TO 9.00PM

4.30PM TO 5.00PM

1.30PM TO 3.00PM

5.00PM TO 7.00PM

7.30PM TO 8.30PM

Const : NEURO PSYCHIATRIST

DR. PRITHWISH BHAUMIK MD (PSTCHIATRIST) AIIMS (NEW DELHI)

DR. SAYANDIP GHOSH MBBS, DPM (CAL). FIPS

DR. SUBHASH CH ROY MD (PSY), DPM ., DIP. CARD (KOL)

Attach : Paviav & Gobra Mental

Hospital

TUESDAY

THURSDAY

FRIDAY (1ST & 3RD)

6.00PM TO 9.00PM

11.30AM TO 12.30PM

04.00PM TO 5.00PM

Const : NEUROLOGIST / NEURO SURGEON

DR. SUMONTA SARKAR MD, DM (NEURO) SSKM Hospital

DR. GITANJALI DATTA MCH (NEURO SURGERY) B.I.N. SSKM HOSPITAL

DR. PUNYBRATA BARMA MD, DPM, DM, NEURO, Associate Prof. Bankura SM Collage

DR.TAPAS BANERJEE MD(MED), DM (NEURO)

PROF. (DR.) T.N. KUNDU MD (MED), DM (NEURO)

Neuro Medicine, B.I.N. Kolkata

MONDAY

FRIDAY

WEDNESDAY

FRIDAY

TUESDAY

5.00PM TO 6.00PM

7.00PM TO 8.30PM

3.30 TO 4.30PM

9.30AM TO 12.30PM

5.30PM TO 10.00PM

Const : GASTROENTROLOGIST & HEPATOLOGIST

PROF. (DR.) KINGSHUK DHAR MD, DNB (MED), DM, DNB (GASTRO) R. G. KAR MEDICAL COLLAGE & HOSPITAL

DR. PRADIPTA GUHA MD, DNB, DM,(GASTRO)

DR.DEBJOY SAU MD, DM,(GASTRO) R. G. KAR MEDICAL COLLAGE & HOSPITAL

DR. JAYANTA SAMANTHA MBBS (Gold Medelist), MD PGI Chandigarh, DM (GASTRO)

WEDNESDAY

FRIDAY

TUESDAY

SUNDAY

04.00PM TO 09.30PM

7.00PM TO 8.00PM

05.00PM TO 6.00PM

09.30AM TO 10.30AM

Const : UROLOGIST & SURGEON

PROF.(DR.) SUPRIYO BASU MS, MCH R.G. KAR MEDICAL COLLAGE & HOSPITAL

DR. MANAS KR. MANDAL MS, MCH

THURSDAY

SUNDAY

07.00PM TO 8.30PM

5.00PM TO 7.00PM

Const : CHEST PHYSICIAN (PULMONARY MEDICINE)

DR. DEBRAJ JASH MD , DNB, MRCP (PULMONARY & Critical ) Att Apollo Gleneagles

DR.DHRUBOJYOTI ROY MD (KOL) DNB (MED) DTCD (GOLD MEDELIST)

Colombia Asia Hospital

DR. PRIYANKA GHOSH MD, DNB (Chest Medecine), Sugar Dutta Hospital

TUE & SATURDAY

THURSDAY

{TUESDAY

SATURDAY}

7.00 PM TO 8.30PM

4.30PM TO 6.00 PM

{4.00PM TO 5.00PM

2.00PM TO 4.00PM}

Const : EAR, NOSE & THROAT (E. N. T.)

DR. DIPANKAR DATTA MS (HONS) KOL

DR. PRANABASHISH BANERJEE MS (KOL)

MS (E.N.T) (Gold Med.) MRCS (Lon) Assit. Prof.

DR. DEBABRATA BISWAS MS (KOL) R.G. Kar Medical Collage & Hospital

TUE, THU,SATURDAY

(SUNDAY,

MON& WEDNESDAY)

FRIDAY

10.30AM TO 12.30PM

02.00PM TO 4.00PM

08.00PM TO 09.00PM

07.30PM TO 8.30PM

Const : NEPHROLOGIST

DR. SANDIP BHATTACHARYA MD, DM (NEPHRO)

DR. KOUSHIK BHATTACHARYA MD, (MED), DM (NEPHRO)

2ND SUNDAY

SUNDAY

9.00AM TO 10.00AM

6.00PM TO 7.00PM

Const : SKIN, LEPROLOGIST, SEX & HAIR

DR. SUDIP DAS MD, AIIMS
(NEW DELHI) DNB FRCP (EDM) Prof HOD

DR. RAMESH CHANDRA GHARMI MD (SKIN)(JITMER) Associate Prof. M.C & Hospital

DR. A. K. HORE MD (KOL), FRSTM (LONDON)

MONDAY

SATURDAY

(WEDNESDAY,

SUNDAY)

07.00PM TO 9.00PM

02.30PM TO 05.00PM

(04.00PM TO 6.00PM,

07.30PM TO 8.30PM)

Const : GYNAE, OBSTETRICIAN & LAPAROSCOPY

PROF. (DR.) P.K. BISWAS MD (O & G) KOL, (C.N.M.C & Hospital)

DR. C. K. SAHA MD (O& G) PGI, CHANDIGARH

DR.R. N. SARKAR MD (O & G)B.N. Bose Hospital

DR. SANJIB KARMAKAR MD (O& G)(Cal)

DR. ONONNA DAS (JASH) MBBS, MS (O&G),BHU, FMAS, FELLOWSHIP IN ART, Laparoscopic Surgeon & INFERTILITY Specialist

DR. JAYASREE AICH DGO (KOL), FIC, M.C.H (O&G)

DR. ROCHITA BANERJEE DGO (KOL), MD (O & G) KOL

DR. SONALI GANGULY DGO (KOL) O&G

SUNDAY

{MONDAY

FRIDAY}

{THURSDAY

SUNDAY}

{MONDAY

SATURDAY}

{TUESDAY

THURSDAY

SATURDAY}

SATURDAY

FRIDAY

TUESDAY

6.00PM TO 9.00PM

{09.30AM TO 11.00AM

02.3PM TO 5.00PM}

{5.30PM TO 6.30PM

10.00AM TO 11.00AM}

{07.00PM TO 9.00PM

9.00AM TO 11.00AM}

{4.30PM TO 5.30PM

6.30PM TO 7.30PM

11.00AM TO 12NOON}

6.30PM TO 9.00PM

7.30PM TO 9.00PM

7.00PM TO 8.00PM

Const : GENERAL & LAPAROSCOPY SURGEON

DR. DEBASIS ROY MS (KOL) DIPALS, FMAS

DR. SUBIKASH BISWAS MS (KOL) MRCS (ENGLAND) FMAS (Asst. Prof. JNM Hospital)

PROF. (DR.) D. GOUTAM MS (KOL) MEDICAL COLLAGE & HOSPITAL

DR. MRIGANKA GHOSH MS (KOL) MS, FIAGS ASSOCIATE Prof. MCH

DR. (Lt. Col) ABHIJIT MUKHARJEE MS, F.MAS.

Consaltant General & Laparoscopy Surgeon

MON, FRIDAY

TUE & SUNDAY

MON& THURSDAY

MONDAY & FRIDAY

WED & SATURDAY

10.00AM TO 11.00 AM

05.30PM TO 6.30 PM

8.00PM TO 9.00PM

6.30PM TO 9.00PM

07.00PM TO 8.00PM

GENERAL PHYSICIAN

DR. B. K. CHANDA MBBS (KOL)

DAILY 11.00AM TO 1.00PM
PSYCHIATRIC COUNSELLOR

MR. SHANTANU GHOSH MS(PSYCHOTHEREPY & Counselling)

P.G. DIP (PSYCHOLOGICAL COUNSELLING FOR CHILDREN)

MR. MOHIT RANADIP PDG (J.U.)

DEBOLINA DAS SHARMA M.A., & P.G. DIPLOMAIN PSYCHOLOCAL COUNSELLING

SUNDAY

FRIDAY

SATURDAY

10.00AM TO 12.00 NOON

11.00AM TO 1.00PM

10.00TO 12.00 NOON

SPECIAL DIATITION & NUTRITIONIST

DR. UDYAN BHATTACHARYA M.Sc. Ph.D M.I. R.H.A (KOL)

SATURDAY 05.00PM TO 7.00PM

AMBULANCE : 9831664489 PANKAJ MITRA, Barrackpore, (M) : 9051215738

 

OYO Ivy Hotel

Address : 94/5, G.P.Road, Ghosh para road, barrackpore,Kolkata – 700120 (near 4 no party office)

Contact no : 79 4740 9899

Price : Starts from 958/- per night stay

OYO Hotel K2 cum restaurant & bar

Address : Chalk kanthalia, barrackpore Dumdum expressway, G.P Mohanpur, barraackpore, Kolkata – 700121

Price :

Hotel Sweet Dream

Address : Kalyani Expy, Rabindrapally, Mohanpur, Kolkata – 700122

Contact no : 098319 43894

Price : Starts from 1717/- per person per night

Orchid hotel

Address : 123/1, GHOSH PARA ROAD, Ghushi para, Kolkata, west Bengal 700120

Contact no : 9331666888

Price : Starts from 650/- per night

1).Barrackpore: Barrackpore is famous for the first British barrack that was built here in the year 1772. After settling here, Britishers spread their control over India conquering different states. In the 19th century, two major revolts took place in Barrackpore for attaining Independence. The Indian Rebellion of 1857 took place here which later ignited the fire among people to fight for their independence. Being a place filled with gardens & greenery, Barrackpore provides travelers with ample places where one can relax under verdant trees and enjoy some quiet time amidst blooming flowers and green shrubs. Spend an evening having a picnic and maybe unleash your inner child. Barrackpore makes for a great weekend getaway as it proffers a perfect blend of history and culture. Barrackpore is a quiet place nestled in the state of West Bengal which saw a lot of turbulence but stood still.
Pic: Barrackpore
One of the closest picnic spots near Kolkata, Barrackpore has an eminent historical significance as shared above, same has played a major role in the independence struggle of our country, this place has attractions that are more like an ode to the martyrs of the war.  The Gandhi Ghat, Mangal Pandey Park, a museum on Mahatma Gandhi, and Jawahar Kunj Garden are some of such attractions. Boating facilities are also available in Barrackpore. You can spend some peaceful time paddling in the serene water of River Hooghly. 
Places to Visit in Barrakpore
 
1. Mangal Pandey Park: This beautiful park is built in honor of Mangal Pandey who was the first Nationalist to rise against the British oppression.
He voiced his thoughts and started an independence movement in Barrackpore. Unfortunately, he was hanged by the Britishers on 8 April, 1857. A splendid statue of him is situated in the park along with verdant trees and blossoming flowers. This place holds historical significance and is visited by travelers and locals to enjoy tranquility and solitude.
2. Gandhi Museum: Gandhi Museum is a grand museum which has five galleries, a study centre and a huge library replete with some of the rarest books.
This museum mainly contains information and artifacts of Gandhi. Some of the rare books from Gandhi’s collection are up for display here. Books written by Gandhi are also available for sale. More than 800 photographs of freedom fighters are put up here to honor them. You can visit this museum between 11am to 5pm every day except Wednesday as the museum is closed on Wednesday. There is no entry fee for this museum.
3. Annapurna Temple: Temple is situated in Talpukur area of the subdivisional town of North 24 Parganas Barrackpore just by the sides of the Ganges. The temple is dedicated to Goddess Annapurna.The construction of this brick-made temple began roughly in 1870 and it took five years to complete.
The temple is in a raised platform and there is a staircase on the western, northern, and southern side. The first floor contains four ratnas while the second floor has five which when sums up comes to nine ratnas or nabaratna. The inauguration took place on 30th Chaitra, 1281, which according to Gregorian calendar was 12th April, 1875; almost two decades after the opening of the Dakshineswar Temple. Ramakrishna Paramahansadev was present not only on the day of the inauguration of Annapurna Temple but also on the day of selection of the land for the temple. It was said that previously Serampore on the other side of the Ganges was selected as the place for the temple but finally Chanak (the old name of Barrackpore) was finalized for the construction of this beautiful nabaratna temple. Annapurna Temple was built by the youngest daughter of Rani Rashmoni – Jagatdamba and wife of Mathur Mohan Biswas.
4.  Bartholomew Cathedral: Also known as Garrison Church, Bartholomew Cathedral was built in 1847. The cathedral is beautifully built with illustrations of gothic architecture. Since this church was built by Britishers during their stay in Barrackpore, this church is similar to a lot of churches in Britain. Visiting this church and praying in front of the magnificent pulpit will make you feel calm and pious.

 

5.  Tarakeswar Temple: This pristine temple was built in the 18th century. The temple houses a lingam in the inner sanctum while the open veranda is used to hold congregations. The temple is built using pristine white marbles and the grand architecture of it is what lures people in visiting the temple. This temple is also known to provide solace for the disturbed soul and purge them of negativity.
6. Gandhi Ghat: Gandhi Ghat is built as a memorial to honor the “Father of the Nation.” This ghat comprises of a lot of murals that depicts the works that Gandhi did throughout his life.
Some of Gandhi’s ashes after his death was spread here. The ghat also provides visitors with a mesmerizing view of the Ganga River. This ghat is filled with tranquility and serenity and is a must-visit.
 
7. Jawaharkunja Garden: Jawaharkunja Garden is situated near the Gandhi Ghat. This place is popular amongst people as it is serene and calm which makes it a perfect picnic spot. The garden is filled with verdant trees and shrubs. A lot of colorful flowers and be seen blooming here. A small yet tranquil pond lies right at the center of the garden which magnifies the beauty of the whole place. This garden is a must to relax and spend quality time with your loved ones.
 
8. Nishan Ghat: The construction of Nishant Ghat was undertaken by the Britishers for the purpose of their Governor-General. This ghat was visited by a lot of guests of the Governor-General and senior officers of East India Company. This ghat is close to River Hooghly and provides mesmerizing landscapes. The ghat is surrounded by verdant trees. If possible try to witness either a sunrise or a sunset from here as the scenic beauty during this time is splendid.

উত্তর ২৪ পরগণার ব্যারাকপুরের কাছে তালপুকুরের অন্নপূর্ণার 'নবরত্ন' মন্দিরটি বিশেষ উল্লেখযোগ্য। তালপুকুরের আগের নাম ছিল চানক। মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন রানি রাসমনির ছোট মেয়ে জগদম্বা দেবী। রানি রাসমনির জামাই মথুর বিশ্বাস তাঁর প্রথমা স্ত্রী করুণাময়ীর ( রানি রাসমনির সেজ মেয়ে ) মৃত্যুর পর জগদম্বা দেবীকে বিবাহ করেন। ঠাকুর শ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব ইং ১৮৭৫ সালের ১২ ই এপ্রিল ( ৩০ শে চৈত্র, ১২৮১ বঙ্গাব্দ ) এই মন্দির উদ্বোধন করেন। অন্নপূর্ণার এই মন্দিরের সঙ্গে দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণীর 'নবরত্ন' মন্দিরের খুবই সাদৃশ্য আছে। দুটি মন্দিরই একই স্থপতির পরিকল্পনায় তৈরী। অন্নপূর্ণার মন্দিরটির উচ্চতা ভবতারিণীর মন্দিরের উচ্চতার চেয়ে কিছুটা বেশি। পূর্বদিকের একটি সিংহমূর্তিযুক্ত লোহার ফটক দিয়ে মন্দির প্রাঙ্গণে প্রবেশ করলে পাশাপাশি নাটমন্দির ও অন্নপূর্ণার মন্দির চোখে পড়বে। পশ্চিম সীমান্তে উত্তর-দক্ষিণে বিস্তৃত পাশাপাশি ছয়টি উঁচু আটচালা শিবমন্দিরের প্রত্যেকটিতে প্রায় তিন ফুট উঁচু কালো পাথরের শিবলিঙ্গ প্রতিষ্ঠিত। উক্ত ছয়টি শিবমন্দিরের মাঝখানের একটি লোহার ফটক থেকে একটি রাস্তা সোজা গঙ্গার ঘাট পর্যন্ত গিয়েছে। গঙ্গার ঘাটে উপরে ছাদ বিশিষ্ট চাঁদনি থেকে ইঁটের তৈরী সিঁড়ি গঙ্গার গর্ভ পর্যন্ত নেমে গেছে।

ইঁটের তৈরী অন্নপূর্ণার মন্দিরটি একটি উচ্চ বেদির উপর স্থাপিত। মন্দিরে ওঠবার জন্য দক্ষিণ, পশ্চিম ও উত্তর দিকে সিঁড়ি আছে। চারিদিকের ঘোরানো রক্ ও মন্দিরাভ্যন্তরের মেঝে যথাক্রমে বেলে পাথর ও শ্বেত পাথর দিয়ে তৈরী। মন্দিরে প্রতিদিকে পাঁচটি করে খিলান-প্রবেশপথ বা ভরাটকরা নকল খিলান-প্রবেশপথ আছে। খিলান প্রবেশপথের উপরের দেওয়াল 'পঙ্খ' দ্বারা অলংকৃত। স্তম্ভগুলিও সুদৃশ্য। দ্বিতলেও এই মন্দিরে তিনটি করে 'খিলান' আছে। প্রতিদিকে দুটি করে বাঁকানো কার্নিস ছাদের কার্নিসযুক্ত চালার ন্যায় বাঁকা। তার ঠিক উপরে দ্বিতল ও ত্রিতলে রেলিং দেওয়া অনুচ্চ দেওয়াল। মাঝের অংশ ফাঁকা। ওপর ও নিচের মাঝখানের অংশে যেসব ছোট ছোট কুলুঙ্গি আছে, সেগুলি খালি। অন্নপূর্ণার এই মন্দিরে দ্বিতল ও ত্রিতলে যে নয়টি 'রত্ন' আছে, সেগুলি খাঁজকাটা দেউলাকৃতি। প্রতিটির শীর্ষে চক্র স্থাপিত। অন্নপূর্ণার এই মন্দিরের দক্ষিণদিকের ঢাকা বারান্দা কিছুটা অপ্রশস্ত, দক্ষিণেশ্বরের মতো অত চওড়া নয়। গর্ভগৃহে শ্বেতপাথরের বেদীর উপর রুপোর তৈরী সিংহাসনে আসীনা অষ্টধাতুর তৈরী দেবী অন্নপুর্ণা, অলঙ্কার-ভূষিতা ও অন্নদানে রতা মাতৃমূর্তি তাঁর ডান হাতে অন্নদান করার হাতা এবং বাঁ হাতে অন্নপাত্র। দেবীর ডানপাশে দণ্ডায়মান রুপোর তৈরী মহাদেব, হাতে ত্রিশূল ও ভিক্ষাপাত্র।

অন্নপূর্ণার প্রতিদিন সকালে মঙ্গলারতি, দুপুরে অন্নভোগ এবং সন্ধ্যায় আরতি ও দুধ-লুচি সহযোগে শীতল পুজো হয়। অন্নপূর্ণা পূজায় এখানে জাঁকজমক সহকারে পুজো হয়।

মন্দিরের সামনে প্রশস্ত নাটমন্দির। নাটমন্দিরের উত্তর ও দক্ষিণদিকে পাঁচটি করে এবং পূর্ব ও পশ্চিমদিকে সাতটি করে খিলান-প্রবেশপথ। খুবই চাকচিক্যময় এই নাটমন্দির। উঁচু গোল গোল থাম নাটমন্দিরের চারদিকে সুবিন্যস্ত।

মন্দির চত্বর পাঁচিল দিয়ে ঘেরা। পূর্বদিকে প্রধান প্রবেশদ্বারের উপর একটি সিংহের মূর্তি আছে। সেই সময় স্থানীয় ইংরেজ সরকার এই সিংহের মূর্তিকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য মন্দির কর্তৃপক্ষকে চাপ দিয়েছিল। তাঁদের বক্তব্য ছিল যে এটা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের প্রতীক। তাই মন্দির কর্তৃপক্ষের কোন এক্তিয়ার নেই এটা ব্যবহার করার। এ ব্যাপারে মামলাও হয়। অনেক বছর আইন-যুদ্ধের পর কোর্ট রায় দেন, "Art is art, let the art prevail "। সেই থেকে সিংহের মূর্তি এখনও রয়ে গেছে।

মন্দির দর্শণের সময় :

গ্রীষ্মকাল : সকাল ৫ টা ৩০ মি. থেকে দুপুর ১২ টা ৩০ মি এবং বিকাল ৪ টা থেকে রাত্রি ৮ টা।

শীতকাল : সকাল ৬ টা থেকে দুপুর ১ টা এবং বিকাল ৩ টা ৩০ মি. থেকে রাত্রি ৮ টা।

অন্নপূর্ণার এই মন্দিরে যেতে হলে শ্যামবাজার থেকে ব্যারাকপুর গামী যেকোন বাসে উঠুন, নামুন তালপুকুর। ট্রেনে যেতে হলে শিয়ালদহ থেকে ব্যারাকপুর গামী যেকোন লোকাল ট্রেনে উঠুন, নামুন ব্যারাকপুর। তারপর বি.টি. রোডে এসে টিটাগড় গামী যে কোন অটো বা বাসে উঠুন, নামুন তালপুকুর। সেখান থেকে রিকশায় পৌঁছে যান মন্দির।

ঐতিহ্যের ইতিহাসপর্বঃ

আজ অনুষ্ঠিত হল প্রাচীন শিবশক্তি অন্নপূর্ণা মন্দির ও দেবত্তর এস্টেট এর পরিচালনায় ব্যারাকপুর অন্নপূর্ণা মন্দিরে বিশেষ পুজো। সেই পুজোয় বনেদীয়ানা পরিবারের অন্যতম সদস্য শ্রীমান্ শুভদীপ উপস্থিত ছিলেন, অন্নপূর্ণা মন্দির সম্পর্কে তথ্য প্রদান করলেন মথুরামোহন বিশ্বাসের পরিবারের পঞ্চমপুরুষ শ্রী অলোক কুমার বিশ্বাস, তিনি মন্দির পরিচালন কমিটির অন্যতম সদস্য ম্যানেজিং সেবায়েত(প্রধান), সাহায্য করলেন মন্দিরের পুরোহিতবর্গ, এছাড়া মন্দিরের অন্যতম সদস্য কল্যান বাবু ইত্যাদি ব্যক্তিবর্গ। আজ অন্নপূর্ণা পূজার পুন্যতিথিতে "বনেদীয়ানা" য় আলোচনা ব্যারাকপুরের শ্রীশ্রীঅন্নপূর্ণা মন্দির।

১৮৭৫ সালের ১২ই এপ্রিল শ্রীমতী জগদম্বাদেবীর প্রতিষ্ঠিত মা অন্নপূর্ণার মন্দির, ব্যারাকপুরের তালপুকুর রোডে।

স্নেহধন্যা জগদম্বাদেবীর ঐকান্তিক আগ্রহে পরমহংস শ্রীরামকৃষ্ণদেব চাণকের অন্নপূর্ণা মন্দিরের প্রতিষ্ঠা দিবসেই যে উপস্থিত ছিলেন তা নয়, তাঁরই অনুমোদনক্রমে মথুর-জগদম্বার মনোবাঞ্ছা-মোতাবেক বিনির্মিত হয়েছে এই ঐতিহাসিক মাতৃমন্দির। এই মন্দিরে শ্রীরামকৃষ্ণ অবতারবরিষ্ঠ পদার্পণ করেছিলেন চারবার। প্রথমবার জগদম্বাদেবীর মন্দির স্থাপনের বাসনায় জমি ক্রয়কালে উপযুক্ত স্থান নির্বাচন করতে। দ্বিতীয়বার এসেছিলেন মন্দিরের ভিতস্থাপনের দিন। তৃতীয়বার এসেছিলেন ১৮৭৫ সালে মন্দির প্রতিষ্ঠার দিন।

এই অন্নপূর্ণা ঠাকুরানীর মন্দির ভবতারিণী মন্দিরের প্রতিষ্ঠার ২০বছর বাদে ১৮৭৫ সালে,১২এপ্রিল। মন্দির প্রতিষ্ঠাত্রী জগদম্বাদেবী ছিলেন রাণী রাসমনির কনিষ্ঠা কন্যা এবং মথুরামোহন বিশ্বাসের পত্নী। মথুরামোহনের ইচ্ছাকে রূপ দিতেই তিনি মন্দির তৈরী করেছিলেন। তারপর যুগাবতার শ্রীরামকৃষ্ণদেবের উপস্থিতিতে এই দেবালয় প্রাঙ্গনকে কয়েক লক্ষ মুদ্রা ব্যায়ে নির্মিত করা হয়- নবরত্ন মন্দির, ছয় শিবের মন্দির, নহবত, নাটমন্দির, স্নানঘাট ও দপ্তরখানার ঘর। ঠাকুর মন্দির প্রতিষ্ঠার দিন বেলতলায় আসণ গ্রহণ করেছিলেন, সেই বিল্ববৃক্ষ আজও বর্তমান। অন্নপূর্ণা মন্দিরে ঠাকুরের চতুর্থবার আগমন ঘটে ১৮৮২ সালে উল্টোরথের দিন।

 

রাণী রাসমনি যেমন দক্ষিণেশ্বরের মন্দির প্রতিষ্ঠার দিন জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে করেছিলেন ঠিক তাঁর কন্যাও মন্দির প্রতিষ্ঠার দিন বহু সাড়ম্বরে অনুষ্ঠান করেছিলেন। দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণী মন্দিরের আদলে তৈরী এই ব্যারাকপুর অঞ্চলের মা অন্নপূর্ণার মন্দির। রাণী রাসমনির প্রতিষ্ঠিত দক্ষিণেশ্বরের মা ভবতারিণীর মন্দির এবং ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের সাধনপীঠ।

 

এই ভবতারিণীর মন্দির থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ব্যারাকপুর শহর। অনেকেরই এই বিষয়ে অজানা যে এই ব্যারাকপুরেই রয়েছে এক নবরত্ন মন্দির। এই মন্দিরকে বহু মানুষ বলেন দক্ষিণেশ্বরের 'রেপ্লিকা' আবার কেউ বলেন দক্ষিণেশ্বরের মিনি সংস্করণ। এই মন্দিরের দেবী মা অন্নপূর্ণা। ১৮৫৫ খ্রিঃ ৩১মে স্নানযাত্রার দিন যেমন দক্ষিণেশ্বরের মন্দির প্রতিষ্ঠা হয় তেমনই ১৮৭৫ সালের ১২ এপ্রিল চৈত্রসংক্রান্তির দিন প্রতিষ্ঠিত হয় মা অন্নপূর্ণার মন্দির। ব্যারাকপুরের আগের নাম ছিল চানক। চানক গ্রামের এই অন্নপূর্ণা মন্দিরটি এলাকাতে সোনার অন্নপূর্ণা নামেই বিখ্যাত কিন্তু অন্নপূর্ণার বিগ্রহ এখানে অষ্টধাতুর। মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত অন্নদাত্রী দেবী অন্নপূর্ণার বিগ্রহটি অষ্টধাতুর শ্রীশ্রীশিবশক্তি অন্নপূর্ণা ঠাকুরানী নামে পরিচিত। রৌপ্যশতদল আসীনা দেবীর একটি পদ নীচে ঝোলানো, বাম হাতে অন্নপাত্র ডান হাতে হাতা। মহাদেব দণ্ডায়মান, অন্নপ্রত্যাশী। ছয় শিব মন্দিরও রয়েছে এখানে, যথাক্রমে- কল্যাণেশ্বর, কাম্বেশ্বর, কিন্নরেশ্বর, কেদারেশ্বর, কৈলাসেশ্বর এবং কপিলেশ্বর।

সারাবছর নিত্যপুজো হয় মন্দিরে। এই দুই মন্দিরেই সেবায়েত রাণী রাসমনির বংশোদ্ভবেরাই। মন্দিরের প্রতিষ্ঠা দিবস আগামীকাল চৈত্রসংক্রান্তির দিন। এছাড়া মঙ্গলচণ্ডীর পুজো, বিপত্তারিণী পুজো, জন্মাষ্টমী, দুর্গাপুজো, কালীপুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো ইত্যাদি অনুষ্ঠিত হয়।

আজ অন্নপূর্ণা পুজো এবং নীলের পুজো একদিনে হওয়ায় বহু ভক্তের সমাগম হয়েছে মন্দিরে। তাদের সাথেও কথা বলে বনেদীয়ানা পরিবার, তাদের মধ্যে কেউ ব্যারাকপুরেই থাকেন আবার কেউ থাকেন কোলকাতায় বা অন্য জেলায়। বহু ভক্ত বহু বছর ধরে এই দিনটার জন্যই মায়ের কাছে আসছেন তাদের একটাই কামনা-"মা সবাইকে ভালো রেখো এবং সবার মঙ্গল করো"।  কথা বলেছিলাম ভোগরান্না করেন সেই বিলাসবাবুর সাথেও, তিনি প্রায় চারবছর ধরে মায়ের ভক্তদের জন্য ভোগ রান্না করছেন, তারা প্রায় ১৬জন এসেছেন এই মহাভোজের রান্না করতে। মায়ের ভক্তদের ভোগে ছিল- খিঁচুড়ি, নানা রকমের তরকারি, পায়েস ইত্যাদি। তার কথায় প্রায় ৩০০০ ভক্তের জন্য রান্না করছেন তিনি।

অন্নপূর্ণা মন্দিরের প্রাঙ্গনটি টালি দিয়ে বাঁধানো, ঘাসে মোড়া। প্রাঙ্গনের তোরণদ্বারের ওপর স্থাপিত এক সিংহমূর্তি। এই সিংহমূর্তি নিয়ে ব্রিটিশের সাথে সম্মুখ সমর হয় মন্দির কর্তৃপক্ষের। কারণ ব্রিটিশ দাবী করে যে সিংহ তাদের রাজশক্তির গর্বের প্রতীক তাই কোন নেটিভের নির্মাণ করা মন্দিরে এই মূর্তি থাকবে তা ব্রিটিশ মেনে নিতে পারেনি। ব্রিটিশ রাজশক্তিকে পরাজিত করে মন্দির কর্তৃপক্ষ। দেশপ্রেমের এক অনন্য নজির।

রাণী রাসমনি দক্ষিণেশ্বরের মন্দির তৈরী করেন তাঁর স্বর্গীয় স্বামীর মনোস্কামনা পূর্ণ করবার জন্য, সেকথা রাণী নিজেও উল্লেখ করেছেন। আর ব্যারাকপুরের শ্রীশ্রীঅন্নপূর্ণা মাতাঠাকুরাণীর মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন রাসমণিরই কনিষ্ঠা কন্যা জগদম্বা দেবী তাঁর স্বর্গীয় স্বামী মথুরামোহন বিশ্বাসের অভিপ্রায় পুরণের জন্য। জগদম্বা দেবী এই মন্দিরের জন্য দেবত্তর সম্পত্তির উল্লেখ করা ছাড়াও নির্দেশ দিয়েছিলেন যে এই  মন্দিরের পরিচালন ভার থাকবে মথুরবাবুর পরিবারের বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তির হাতে। এই দুই মন্দির স্থাপনের ক্ষেত্রেও স্বপ্নাদেশ। রাণী রাসমনি স্বপ্নাদেশ পেয়ে কাশীযাত্রা বন্ধ করেন ও মা ভবতারিণীর মন্দির তৈরী করেন। অনুরূপভাবে জগদম্বা দেবীও নাকী নৌকা করে গঙ্গার ওপর দিয়ে কাশীযাত্রার সময় চানক গ্রামের কাছে মা অন্নপূর্ণার স্বপ্নাদেশ পান যে আর কাশী যাওয়ার দরকার নেই এখানেই আমায় প্রতিষ্ঠা কর।

এই ব্যারাকপুরে অন্নপূর্ণা মন্দিরের পাশেই ছয়টি শিব মন্দির আছে। শোনা যায় জগদম্বা দেবীও মন্দির প্রাঙ্গনে বারোটি শিব মন্দিরই নির্মাণ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি স্বপ্নাদেশ পান যে তিনি যেন তাঁর মায়ের অতুলনীয় কীর্তির সাথে পাল্লা দিয়ে মন্দির নির্মাণ না করেন। এরপরই তিনি ছয়টি মন্দির নির্মাণ করেন। মা অন্নপূর্ণার মন্দির গঙ্গার পূর্বপাড়ে অবস্থিত এবং মন্দিরের মাতৃমূর্তি দক্ষিণমুখী। ব্যারাকপুর মন্দিরের নির্মাণ শুরু হয় সিবি স্টুয়ার্টের কুঠিবাড়ি কিনে। মূল মন্দিরের সামনে নাটমন্দির অবস্থিত। অন্নপূর্ণা মন্দিরের নাটমন্দিরের কারুকার্য অনেক বেশী। মন্দিরের পাশে গঙ্গার ঘাট রয়েছে, নাম রাসমণি ঘাট। এই ঘাটে মহিলাদের সজ্জাবদলের কক্ষ আছে। এই মন্দিরের বিস্তীর্ণ প্রাঙ্গনের রয়েছে দুইটি করে নহবতখানা। ব্যারাকপুরের মন্দিরের মূল প্রবেশপথ পূর্বদিকে। অন্নপূর্ণা মন্দিরের বেলতলা মন্দিরের উঠোনের ভিতরে।

এছাড়া অলোকবাবুর কথায় মাকে এই দিন পোলাও, সাদাভাত, পাঁচ রকমের ভাজা, পাঁচ রকমের মাছ, তরকারি, পায়েস ইত্যাদি ভোগ দেওয়া হবে। অন্নপূর্ণা মন্দিরের বিশেষ আকর্ষণ অন্নকূট উৎসব। প্রায় একশো কেজি চালের অন্নকূট হয় এই মন্দিরে।

এককথায় আজ সারাদিন ব্যারাকপুরের শ্রীশ্রীঅন্নপূর্ণা মন্দিরে ভক্তের ভিড় দেখার মতন, তার সাক্ষী বনেদীয়ানা পরিবারের সদস্যরা। মা তাঁর সন্তানদের দুহাত তুলে আশীর্বাদ করছেন। এই ঐতিহাসিক এবং ঐতিহ্যপূর্ণ অন্নপূর্ণা মন্দিরের ইতিহাস এবং সারাদিন বনেদীয়ানাকে সময় দেওয়ার জন্য সমস্ত ভক্তকে, মন্দির কমিটির সদস্যবৃন্দদের, রাসমণি পরিবারের সদস্যদের অনেক ধন্যবাদ।

কৃতজ্ঞতাস্বীকারঃ শ্রী অলোক কুমার বিশ্বাস

ইতিহাসের সিপাহী বিদ্রোহ একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। এ বিদ্রোহ পরবর্তীতে ভারতকে স্বাধীনতার দিকে ধাবিত করেছিল। উপনিবেশবাদী বৃটিশদের অত্যাচার-নির্যাতনের বিরুদ্ধে ভারত উপমহাদেশে সর্বপ্রথম প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিলেন মঙ্গল পান্ডে। তিনি ভারতীয়দের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রথম মুক্তিযোদ্ধা ও বীর শহীদ।

মঙ্গল পান্ডের জন্ম ১৮২৭ সালের ১৯ জুলাই। উত্তরপ্রদেশের বালিয়া জেলায় নাগওয়া গ্রামে। অনেকের মতে তার জন্ম হয়েছিল ফৈজাবাদ জেলার সুরহুর গ্রামের একটি ব্রাহ্মণ পরিবারে। দিবাকর পান্ডের ঘরে। পড়াশোনার হাতেখড়ি পরিবারে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়াশোনা শেষ করে মাত্র ২২ বছর বয়সে ১৮৪৯ সালে তিনি বৃটিশ ইস্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানিতে সিপাহী পদে চাকরি নেন। এখানে চাকরি করতে এসে তিনি অনেকরকম বৈষম্য আর অন্যায় দেখতে পান, যা মঙ্গল পান্ডেকে গভীরভাবে নাড়া দেয়। ভারতীয় সিপাহীরা যখন কর্মরত থাকতেন, তখন কোনো ইংরেজ সিপাহী বা অফিসার দেখলেই অস্ত্র উত্তোলন করে সম্মান দেখানোর রীতি ছিল। কিন্তু ভারতীয় সিপাহী বা অফিসারকে ইংরেজ সিপাহীরা সম্মান দেখাতো না বরং বিমাতাসুলভ আচরণ করতো। ভারতীয় সিপাহীরা যদি কোনো স্থানে কোনো কারণে মারা যেতেন, তাহলে ওই পরিবারের কোনো খোঁজ-খবর ইংরেজ বাহাদুররা নিতো না। অবশেষে ওই পরিবারটি নিঃস্ব হয়ে যেত। আর ইংরেজ সিপাহীদের ক্ষেত্রে ছিল অফুরন্ত সুযোগ-সুবিধা।

১৮৫৩ সালে তৈরি করা হয়েছিল ৫৫৭ ক্যালিবার এনফিল্ড (পি/৫৩) রাইফেল। এই রাইফেল ভারতীয় সিপাহীদের হাতে তুলে দেয় বৃটিশ সরকার। রাইফেলগুলোর কার্তুজ গরু ও শুকরের চর্বি দিয়ে তৈরি হতো। সৈন্যরা তাদের রাইফেলের কার্তুজ লোড করার সময় তা দাঁত দিয়ে খুলে লাগাতে হতো। গরু ও শুকরের চর্বি মুখে দেওয়া হিন্দু-মুসলিম সৈন্যদের জন্য অধার্মিক ও গর্হিত কাজ। ১৮৫৭ সালের ফেব্রæয়ারিতে সিপাহীরা (বৃটিশ সেনাবাহিনীতে ভারতীয় সৈন্য) নতুন কার্তুজ ব্যবহার করতে অস্বীকার করেছিল। এর প্রেক্ষিতে নতুন কার্তুজ প্রতিস্থাপন করার প্রতিশ্রæতিও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সিপাহীদের কাছে এই প্রতিশ্রæতির কোনো মানে দাঁড়াল না।

এ অগ্নেয়াস্ত্র তুলে দেওয়ার জন্য বৃটিশ শোসকগোষ্ঠীকে চরম মূল্য দিতে হয়েছিল। সম্মুখীন হতে হয়েছিল সিপাহী বিপ্লবের। আর এই বিপ্লবের শুরুটা করেছিলেন মঙ্গল পান্ডে। ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন-সংগ্রামের ইতিহাসে অন্যতম নক্ষত্র হলেন মঙ্গল পান্ডে।

ব্যারাকপুর। কলকাতার একটি অঞ্চল। ব্যারাকপুরের পঞ্চম ব্যাটালিয়নের বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদস্য ছিলেন মঙ্গল পান্ডে। ১৮৫৭ সাল। ইংরেজকে সরাসরি প্রতিরোধের বছর। যাকে আমরা বলি সিপাহী বিদ্রোহ বা যুদ্ধ। কেউ কেউ মহাবিদ্রোহ বলে থাকেন। মহাবিদ্রোহ ১৮৫৭ কে ভারতের প্রথম স্বাধীনতা আন্দোলন রূপে গণ্য করা হয়। ইংরেজ ইতিহাস গবেষকরা একে সিপাহী বিদ্রোহ বলেছেন। ইংরেজ সেনাবাহিনীর অন্তর্গত ভারতীয় সিপাহীরা ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে মূল ভূমিকা পালন করেন। ইংরেজ সরকার এই বিদ্রোহকে কঠোর হস্তে দমন করলেও এর মাধ্যমে ভারতে স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনা হয়। কত লাঞ্ছনা, কত অত্যাচার, কত অশ্রæমোচন, কত নির্যাতন! দীর্ঘ একশত বছর পর অনন্তকাল সমুদ্রের বুকে একটা সাইক্লোন! এটাকে অনেকে আবেগের সাথে পলাশীর প্রতিশোধও বলে থাকেন। মাকে শান্ত করে দিল এই সাইক্লোন। মায়ের সন্তানরা সজীব হয়ে উঠল। ফিরে পেল আস্থা। নেমে পড়ল দেশমাতৃকাকে স্বাধীন করার জন্য। ণড়ঁৎ ঊহমষরংয ঃুৎধহঃং ধৎব ভবি রহ হঁসনবৎ, সঁৎফবৎ ঃযবস! ধ্বংস কর অত্যাচারী শ্বেতাঙ্গদের। বজ্রগর্ভ এই সঙ্কেত পৌঁছে গেল জনে জনে, নগরে নগরে, গ্রামে গ্রামে।

উঠ, ভারতবাসী জাগো! হিসেব নিকেশের দিন এলো। একশ বছরের নির্যাতনে জর্জরিত মুমূর্ষু মা মুক্তির বেদনায় কাঁদছে। দিনটি ছিল ২৯ শে মার্চ, ১৮৫৭। রবিবার অপরাহ্ন। ব্যারাকপুরের প্যারেড ময়দানে অসময়ে মানুষদের ভিড় বাড়ছে। ৩৪ নং ইনফ্যানট্টির সিপাহীরা দলে দলে জটলা করছে। চাপা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে চারদিকে। সিপাহীদের মধ্যে কেউ এসেছে খালি হাতে, কেউ বন্দুক নিয়ে। সৈনিকদের ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। রচিত হবে এক মহান ইতিহাস। মঙ্গল পান্ডে সমস্ত সৈনিকদের প্যারেডগ্রাউন্ডে ডাকেন ও সেখান থেকে সিপাহী বিদ্রোহের ডাক দেন। তার উচ্চ পদাধিকারী তাকে আক্রমণ করলে তিনি তলোয়ার দিয়ে ধড় থেকে মুÐু আলাদা করে দেন।

লাইন থেকে পঞ্চাশ কিংবা ষাট হাত দূরে মঙ্গল পান্ডে। বন্দুক কাঁধে নিয়ে টহল দিচ্ছেন। সবাই তার দিকে তাকিয়ে কানাকানি। লোকটা কি পাগল হলো! কিসের জন্যে তার পাগলামি? সে আজ কি করতে যাচ্ছে। এর ফলাফল বা পরিণাম কি হবে, তারা জানে না। সবাই শুধু গভীর আগ্রহে তার দিকে তাকাচ্ছে। ছয়ফুট দীর্ঘ দেহ। ধীরস্থির প্রকৃতির। নিজের স্বভাবের গুণে সকলের কাছে দারুণ জনপ্রিয় পান্ডেকে কে না চেনে। সেই প্রতিদিনের পরিচিত মঙ্গল পান্ডে কি আজ এক নতুন মূর্তি নিয়ে দেখা দিয়েছেন। এ যেন পান্ডের এক নতুন ছবি। কে জানে, তাকে কোন দেবতা ভর করেছে। চিবুক আকাশের দিক তুলে গুলিভর্তি বন্দুক হাতে সামনে পেছনে পায়চারি করছে। হঠাৎ তী² চিৎকার। বেরিয়ে এসো ভাইসব। ফিরিঙ্গির পায়ের তলায় আর কত দিন থাকবে! ওরা আমাদের সোনার দেশ, গর্বের মাতৃভূমি লুটেপুটে যাচ্ছে। আর আমরা মরছি অনাহারে। ওরা আমাদের বেঁচে থাকার অস্তিত্বে হাত দিয়েছে। আমাদের করেছে জাতিভ্রষ্ট। ভাইসব এসব ফিরিঙ্গিদের মারো। কি অদ্ভুদ এই উম্মাদনা! কি এর নাম! মূর্খ সিপাহী কি তা কি জানে! এর নাম দেশপ্রেম। মাতৃভূমি রক্ষার উম্মাদনা। পান্ডেকে শায়েস্তা করার জন্য লেফটেন্যান্ট এলো। কিন্তু পান্ডে স্থির ও অবিচল। বন্দুকের নল লেফটেন্যান্টের দিকে সোজা তাক করে মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে আছে পান্ডে। লেফটেন্যান্টের ঘোড়াটি সরাসরি পান্ডের গায়ের ওপর চড়িয়ে দিল। সঙ্গে সঙ্গে পান্ডে গুলি চালাল। ঘোড়াটি মাঠে লুটিয়ে পড়ল। লেফটেন্যান্ট পান্ডেকে লক্ষ্য করে গুলি চালাল। কিন্তু ওই গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হল। পান্ডে একটু এগিয়ে গিয়ে তলোয়ার দিয়ে লেফটেন্যান্ট বগকে সলিল সমাধি ঘটল। লেফটেন্যান্টের পরে এসেছিল সার্জেন্ট। সার্জেন্ট পান্ডের তলোয়ারের কাছে ধরাশায়ী হলো। তারপর আসল পল্টু। সে ইংরেজদের দালাল। মঙ্গল পান্ডেকে পেছন থেকে দু’হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে। পল্টুও রক্ষা পেল না পান্ডের ধারালো তরবারির কাছে। নিজেকে মুক্ত করল পান্ডে। সবাই উত্তেজিত। সিপাহীদের মধ্যে উল্লাসধ্বনি। শেষ বিকেলে বিদ্রোহের সংবাদ পেয়ে সেনাপতি হিয়ার্সে চলে আসল সেনাক্যাম্পে। ততক্ষণে মঙ্গল পান্ডে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। তারপরও তিনি বৃটিশদের হাতে মরবেন না বলে মনে মনে সিদ্ধন্ত গ্রহণ করেন। হঠাৎ পান্ডের পিস্তল গর্জে ওঠে। অভিমানী সৈনিক। আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। নিজের মাথায় ঠেকিয়ে দেয় পিস্তল। গুলি ফসকে গেল। ধোঁয়া, বারুদ ও অগ্নিশিখার মধ্যে আহত রক্তাক্ত দেহ লুটিয়ে পড়ল। ধরে ফেলল পান্ডেকে। তাকে চিকিৎসা করল বৃটিশ সরকার। উদ্দেশ্য সুস্থ্য করে নির্মম শাস্তি দেওয়া।

৬ এপ্রিল সেপাই মঙ্গল পান্ডের বিচার। বিচারের নামে প্রহসনমাত্র। মঙ্গল পান্ডে তখনো অসুস্থ, হাসপালে শুয়ে। ক্ষতস্থানগুলো ফুলে ওঠেছে। বাঁচার আশা নেই বললেই চলে। ৮ এপ্রিল সকাল। অসুস্থ মুমূর্ষু সৈনিক মঙ্গল পান্ডেকে ব্যারাকপুরে সমস্ত সৈনিকদের সামনে ফাঁসিরকাষ্ঠে ঝুলিয়ে আদেশ কার্যকর করে ইংরেজ। ওই দিন ঈশ্বর পান্ডেকেও ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল। কারণ তিনি মঙ্গল পান্ডেকে গ্রেফতার করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। সামরিক আদালতের রায়ে ১৮ এপ্রিল মৃত্যুদÐ কার্যকরের নির্দেশ দেওয়া থাকলেও নির্ধারিত সময়ের ১০ দিন আগে তাকে হত্যা করা হয়। প্রকৃতপক্ষে এ বিদ্রোহ সুশৃঙ্খল যেমন ছিল না তেমনি ছিল না সুসংগঠিতও। কেন্দ্রীয় যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে বিদ্রোহ সফল হতে পারেনি। এ ঘটনা সারা ভারতবর্ষের সিপাহীদের মধ্যে প্রবল সাড়া জাগিয়েছিল। সিপাহী মঙ্গল পান্ডের আত্মদানে উজ্জীবিত ভারতীয় সিপাহীরা সংঘবদ্ধভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সেনানিবাসে ব্যারাকে আক্রমণকারীর ভূমিকায় সশস্ত্র বিদ্রোহ সংঘটিত করেছিল। মীরাট, দিল্লি, এলাহাবাদ, অযোধ্যা, লক্ষেèৗ, কানপুর, ঝাঁসী, বারানসী, পাঙ্গনা, কেবলী ইত্যাদি স্থানে সিপাহী বিদ্রোহ দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছিল। এমনকি এটা দেশজুড়ে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি করেছিল। চট্টগ্রাম ও ঢাকার প্রতিরোধ এবং সিলেট, যশোর, রংপুর, পাবনা ও দিনাজপুরের খন্ড যুদ্ধ তার প্রমাণ বহন করে।

ব্যারাকপুর চিড়িয়াখানা (THE BARRACKPUR ZOO):
আপনারা কেউ ব্যারাকপুর চিড়িয়াখানায় গেছেন?
আজকের জনবহুল এবং ক্যান্টনমেন্ট শহর ব্যারাকপুরে চিড়িয়াখানা ? বলেন কি?
হ্যাঁ। ছিল, ব্যারাকপুরে চিড়িয়াখানা ছিল। আসুন শুরু করি সেই গল্প।
পলাশীর যুদ্ধের পরথেকে ব্যারাকপুর নিয়ে আলোচনা শুরু হয় সাহেব মহলে। গঙ্গার ধারে মনরম পরিবেশ নজর কাড়তে থাকে ইংরেজ কোম্পানির। অবশেষে ১৭৭২ সালে তৈরি হল প্রথম সেনা ব্যারাক। এর পরথেকে ক্রমে ব্যারাকপুর হয়ে উঠল দ্বিতীয় রাজধানী। তৈরি হল লাটসাহেবের বাগানবাড়ি। তবে ব্যারাকপুরের সত্যিকারের প্রতিষ্ঠাতা লর্ড ওয়েলেসলি।
ওয়েলেসলির ব্যারাকপুরের বাগানবাড়িটি মনে হয়েছিল ‘কুটির’/ “ কর্টেজ”। তাই হুকুম হল তৈরি করতে হবে বাগানবাড়ি। ১৮০২-১৮০৩ শুরু হল বাগানবাড়ি তৈরির কাজ। ২৫০ একর জমির ওপর ১৮০৪ সালের মধ্যে গড়ে উঠল বিরাট বাগান, পুর্নাঙ্গ চিড়িয়াখানা আর বাংলোর ভেতরের ভাগ শুধু তৈরি হল। খরচের বহর দেখে লর্ড ওয়েলেসলিকে বড়লাট পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। বন্ধ হয়েগেল বাংলো তৈরির কাজ।
কিন্তু কেন হঠাৎ চিড়িয়াখান তৈরি করতে গেলেন তিনি? উত্তর পাওয়া গেছিল অনেক পরে। আসলে ১৮০০ সালে তৈরি হওয়া ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ এর শিক্ষার্থীদের জন্য একটি ন্যাচারাল হিস্ট্রি ইনস্টিটিউশান গড়তে চেয়েছিলেন ওয়েলেসলি। মাথায় পরিকল্পনা আসার সাথে সাথে কাজ শুরু করে দিয়েছিলেন। প্রথমে গার্ডেনরিচে ১৮০০-১৮০৪ সালের মধ্যে ৩৫০ পাউন্ড খরচ করে যে পশু সংগ্রহালয় গড়ে তুলেছিলেন সেটাই তুলে এনে চিড়িয়াখানার রূপ দিলেন ব্যারাকপুরে। ঠিক করলেন প্রতি প্রজাতির জন্তুর খাঁচার বাইরে সেই প্রজাতির বিষয়ে বিস্তারিত লেখা থাকবে ইংরাজি, উর্দু ও বাংলা ভাষায়।
দেশের সর্বত্র কোম্পানির কর্মচারীদের চিঠি লিখে পাঠালেন, নির্দেশ দিলেন স্থানীয় জীবজন্তুর নমুনা পাঠাও। ডাঃ ফ্রান্সিস(অভিজ্ঞ ও উৎসাহী পশুতত্ত্ববিদ) বুকানন নিযুক্ত হলেন সংগ্রহশালার তত্ত্বাবধায়ক এবং গবেষক হিসাবে এবং সাথে একজন চিত্রকর। বাজেট ঠিক হল মাসে ১০০০টাকা। পশুপাখির ভরণপোষণের খরচ মাসে ৫০০টাকা। চিত্রকরের মাইনা মাসে ১০০টাকা, রং ও তুলির জন্য মাসে ৬০টাকা, একজন কেরানির মাইনা মাসে ৪০টাকা নতুন জন্তুজানোয়ার কেনার জন্য মাসে ৩০০টাকা। দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসতে থাকল নতুন নতুন জন্তু। ভরে উঠতে থাকল অ্যালবাম। এই অ্যালবাম আজও রক্ষিত আছে লন্ডনের ইন্ডিয়া অফিস লাইব্রেরীতে। এই অ্যালবামে আছে ৩০০০ রকমের জীবজন্তুর হাতে আঁকা ছবি এবং আলোকচিত্র এবং উল্লেখযোগ্য বিষয় হল প্রতিটা প্রজাতির বর্ণনা আছে বাংলা, উর্দু এবং ইংরাজি ভাষায়। আবার অনেক ছবিতে আছে বাঙালি হালদার পদবীর চিত্রকর এর সাক্ষর।
তবে বেশিদিন চলেনি এই সুখের সময়, ১৮০৫ সালে ওয়েলেসলি বিদায় নেবার পরের বছর ছুটি নিলেন বুকানন। যদিও ডাঃ ফ্লেমিং এবং এশিয়াটিক সোসাইটির সদস্য উইলিয়াম লয়েড গিরনিস এই চিড়িয়াখানার দায়িত্ব সামলে যান ভালোভাবেই কিন্তু ১৮০৮ সালে।
এর পরেও এই চিড়িয়াখানা টিকেছিল। লর্ড মিন্টো ১৮১২ সালে নিজের বিবাহবার্ষিকী পালন করলেন চিড়িয়াখানায়। রিতিমত সপ্তাহান্তে ব্যারাকপুরে গিয়ে থাকতেন বড়লাট, গঙ্গার মনোরম দৃশ্য উপভগ করার জন্য রাষ্ট্রীয় প্রমদ তরী “সোনামুখি” তে করে ব্যারাকপুর যেতেন লাটসাহেব, যাতে ছিল শ্বেতপাথরের বাঁধানো বৈঠকখানা, ড্রেসিংরুম, মার্বেলবাথ সব। ১৮১০ সালে মারিয়া গ্রাহাম ব্যারাকপুর ভ্রমণ সম্পর্কে লিখেছেন যে “ চাঁদের আলোয় ওয়েলেসলির অসমাপ্ত প্রাসদটকে মনেহয় প্রাছিন কোন ধ্বংসাবশেষ” তিনি সেখানে দেখেছিলেন পেলিকান, ফ্লেমংগো, জাভার পায়রা, ইত্যাদি হরেক পশুপাখি।
১৮১৪ সালে লেডি নুজেন্টের বর্ণনায় আছে কালোচিতা, উটপাখির বর্ণনা।
১৮১৭-১৮ সালে ফ্রান্সিস রডন হেস্টিংস ৬০৩০টাকা খরচ করে তৈরি করলেন নতুন পক্ষীশালা, ১৮২২ সালে নতুন জন্তু এনে নতুন খাঁচা তৈরি করিয়ে চিরিয়াখাকে সাজালেন নতুন করে ফলে জমির পরিমান বেড়ে দাঁড়াল ৩০০ একর।
১৮২৩ সালে বড়োলাট হয়ে এলেন লর্ড আমহার্স্ট। তিনি মুগ্ধ হয়ে গেছিলেন এই সংগ্রহশালা দেখে। একটি চিঠিতে তিনি বলেছেন আফ্রিকার সিংহ থেকে তিব্বতের বাইসন এমন কি ক্যাংগারু অব্দি ছিল সেই চিড়িয়াখানাতে। বিপত্তি ঘটা শুরু হল সেইসময় থেকেই, কোম্পানি আপত্তি জানাতে থাকে চিড়িয়াখানার অতি খরচের ব্যাপারে। ফলে বাধ্য হয়ে আফ্রিকার সিংহ এবং কিছু বাঘ বিলিয়ে দেন দেশী রাজাদের মধ্যে।
বিপত্তি শুরু হল বেন্টিঙ্কের আমলে। কোন উৎসাহ নেই তার এই ব্যাপারে। বার্ষিক ৫০০ টাকা খরচ করতেও রাজিনন তিনি। তবুও টিকে ছিল এই চিড়িয়াখানা। ১৮৩৭ সালে এমিলি ইডেন জানাছেন চিড়িয়াখনা রিতিমত ভর্তি সে সময়। বেবুন, জিরাফ, বাদর, গণ্ডার সবই ছিল, তার এই কাহিনিতে তিনি তার দেহরক্ষীর সাথে গণ্ডারের লড়াইয়ের দৃশ্য লিপিবধ করেছেন। কলসওয়ার্দি গ্রান্ট চিত্রায়িত করেন এই দৃশ্য। সমসাময়িক সময় পরিকল্পনা হতে থাকে কলকাতাতে পুর্নাঙ্গ জুলজিকাল পার্ক তৈরির। বেন্টিঙ্ক সেই কথায় কান না দিয়ে দেদার বিলিয়ে দিতে থাকেন পশুপাখি।
লর্ড ক্যানিং বড়লাট হয়ে আসার পরে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে ওয়েলেসলির সাধের চিরিয়াখানার অবস্থা ফিরিয়ে আনেন। এই সময় কাবুলের শাসক দোস্ত মোহম্মদ অবাক হয়ে গিইয়েছিলেন জিরাফ দেখে।
এরপর থেকে কেউ আর ফিরেও তাকায়নি এইদিকে। ১৮৬৭এ লর্ড লিটনের আমলে প্রায় ৩০ বছরের আলোচনার পর তৈরি হয় আলিপুর জুলজিকাল পার্ক। তার পাশে ধুঁকতে থাকে ওয়েলেসলির সাধের চিড়িয়াখানা। ভারতে আসার পর সংগ্রহশালার দুরাবস্থা দেখে মর্মাহত লিটন সব পশুপাখি সযত্নে সরিয়ে নিয়ে গেলেন আলিপুরে। অবলুপ্ত হল ব্যারাকপুর চিরিয়াখানা। আজও তার স্মৃতি বয়ে নিয়ে চলেছে আলিপুর জুলজিকাল গার্ডেন।
চিড়িয়াখানা তো নেই কিন্তু সেই নাম আজও আছে, “ব্যারাকপুর চিড়িয়া মোড়” যার নাম এসেছে এই চিড়িয়াখানা থেকে। একটি ছোট্ট স্মৃতি চিহ্ন ওয়েলেসলির সাধের চিড়িয়াখানার।
English Version :
Asia’s first zoo at Barrackpore was even older to London Zoo! Surprised?

Until now, were you living under the impression that the first zoo in Asia was in Kolkata? Well, all of us are mistaken. In the early 1800s, there were only three public zoos across the world. Barrackpore zoo was the fourth. Surprisingly, traces of this unheard Barrackpore Zoo was only recently found in the writings of a world-famous historian, Amitabh Karakul.

Even today, a little search will throw up traces of this ancient zoo, that lies in Laat Sahib Garden. However, no one can enter the premises without permission. The garden has almost a dense undergrowth today and even in the morning, the sound of crickets will reach your ears. You will find the ruins of structures that were constructed almost 200 years ago strewn here and there! You will also come across an aviary of birds in a Gothic structure. And isn’t it unfortunate that only a few kilometers away from Kolkata, remains the scattered remains of this long-forgotten history and hardly any of us knew of it?

Between 1798-1805, Lord Wellesley was the Governor of Kolkata and he created a picturesque garden on the banks of the Ganges in Barrackpore spreading across 1006 bighas of land. This garden is today, called Laat Bagan or Mangal Pandey Park. Right next to this garden, he built a gigantic house that resembled no less than a castle. Later, this house was named Barrackpore Government House. Lord Wellesley also felt the need of making a detailed description of the animals in Asia. This was primarily because the Europeans were mostly ignorant when it came to the category of Indian animals. He started working on the first Natural Research Center in Asia, the ‘National Heritage of India.’ Various animals were required to be collected. Barrackpore Zoo was built to store these animals and birds. Until 1804, Rs 2,791 was invested in the cost of maintenance of these animals and birds. And this was indeed a whopping amount!

The London Zoo was built in 1828. Barrackpore Zoo was built even before that. Between 1817 and 1819, two more bird aviaries and animal centers were built. Heard of Chiria More of Barrackpore? Well, the name China has its origin from this zoo. The zoo had animals such as the African donkey, tiger, bear, bison, leopard, mouse deer, kangaroos, monkeys, and various species of birds. There were separate ponds dedicated to rhinoceros and deer. Unfortunately, Barrackpore no more has traces of this historical zoo created by Wellesley. Today, you will only get pertinent information regarding this ancient zoo in London Museum.

ঝটিকা সফরে ঐতিহাসিক শহরে

ব্যারাকপুর পশ্চিমবঙ্গের  এক সুপ্রাচীন শহর।  ব্যারাকপুরকে সাধারণত শিল্প নগর  বলা হয় কিন্তু এই নগরের নামের সাথে জড়িয়ে আছে বাংলা তথা ভারতের ইতিহাস। জড়িয়ে আছে সেই প্রাচীন লাটসাহেবের বাংলো, এশিয়ার প্রথম চিড়িয়াখানা, বিখ্যাত ঘোড়দৌড়ের বিলুপ্ত ইতিহাস। যে মাটিতে ইংরেজরা  তাদের  ভারী বুটের আস্ফালন দেখিয়েছিল। সিপাহী মঙ্গল পান্ডে যে আস্ফালন সহ্য করতে পারেননি। মহিয়সী নারী লর্ড ক্যানিংয়ের ভালোবাসার শহর ছিল এই ব্যারাকপুর। শহরটি  উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার গঙ্গা তীরবর্তী এক মহকুমা শহর। ভারতবর্ষের ইতিহাসে ব্যারাকপুরের নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে। এই শহরেই দেশের প্রাচীনতম  বিমানঘাঁটি রয়েছে।  রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ, জাতির জনক মহাত্মা গান্ধী, সীমান্ত গান্ধী বাদশা খান, ও ঠাকুর শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণদেবের পদধুলিমাখা শহর হল ব্যারাকপুর।

 ব্যারাকপুরের ইতিহাস :

ব্যারাকপুরের ইতিহাস জানা থাকলে আমার ধারণা এই সুপ্রাচীন ঐতিহাসিক শহর ভ্রমণের আনন্দ লাভ করা যাবে। তাই আমি প্রথমে আমি ব্যারাকপুরের ইতিহাসকে সংক্ষিপ্ত আকারে একটু ধরার চেষ্টা করছি।

ব্যারাকপুরের একসময় নাম ছিল "চানক"। ১৪৯৫ সালে বিপ্রদাস পিপিলাই রচিত "মনসামঙ্গল কাব্যে" এই "চানক" নামটা প্রথম পাওয়া যায়।  ১৮৭১ সালে কবি দীনবন্ধু মিত্র তাঁর "সুরধূনী" কাব্যেও "চানক"  নামটি ব্যবহার করেছিলেন। পরবর্তীকালে ১৭৭২ সালে ব্রিটিশ সৈন্যরা এখানে ব্যারাক অর্থাৎ সেনা ছাউনি তৈরী করে, সেই সময় ব্যারাক শব্দটি থেকেই চানক নামটা পরিবর্তিত হয়ে ব্যারাকপুর নামে পরিচিতি লাভ করে। কারো কারো মতে ব্যারাকপুর একসময় সপ্তগ্রাম পরগনার অধীনে ছিল।  সেই সময় এখানকার শাসনকর্তা ছিলেন রুকউদ্দিন বারবক শাহ। তাঁর স্মৃতিকে  স্মরণ করে লোকে  চানককে বরাবকপুর বলত। পরে অপভ্রংশ হয়ে ব্যারাকপুর হয়।   ১৭৬৫ সাল নাগাদ ব্রিটিশরা ব্যারাকপুর ক্যান্টনমেন্ট তৈরী করেছিল।

২৫৪ বছর পূর্বে ব্যারাকপুরে যে ক্যান্টনমেন্ট তৈরী হয়েছিল সেটাই ভারতবর্ষের ৬২টা ক্যান্টনমেন্টের মধ্যে সর্বপ্রথম ক্যান্টনমেন্ট ছিল। ১৮৫৭ সালের ২৯শে মার্চ ব্রিটিশ অবিচারের বিরুদ্ধে ব্যারাকপুরে বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল। দাঁত দিয়ে কার্তুজ কাটা নিয়ে অসন্তোষের স্ফুলিঙ্গ ছড়াতে শুরু হয়। এই স্ফুলিঙ্গের আগুন জ্বলতে জ্বলতে এক মহাবিদ্রোহের রূপ নেয়। এখানকার সিপাহীরা  প্রতিবাদে গর্জে ওঠে।  এই বিদ্রোহের নেতৃত্বে ছিলেন ৩৪ নং রেজিমেন্টের ৫নং কোম্পানির সিপাহী মঙ্গল পান্ডে (সিপাহী নং ১৪৪৬)। ৩৪ নং রেজিমেন্টের দেশীয় বাহিনীর সার্জেন্ট মেজর হিউসন সাহেব জমাদার ঈশ্বরী পান্ডেকে হুকুম করেছিলেন বিদ্রোহী সিপাহীদের বন্দী করার জন্য।  ঈশ্বরী পান্ডে সেই হুকুম পালন করেননি। মঙ্গল পান্ডে সেই সময় লুকিয়ে হিউসন সাহেবকে লক্ষ্য করে বিদ্রোহের প্রথম গুলিটি চালিয়েছিলেন। যদিও গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছিল। এই খবর পেয়ে ওই রেজিমেন্টের লেফটেনান্ট বি  এইচ বগ ঘোড়ায় চড়ে প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন। মঙ্গল পান্ডে তাকে লক্ষ্য করে দ্বিতীয় গুলি চালিয়েছিলেন। বগ ঘোড়া সমেত মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন। মাটি থেকে উঠে তিনি  মঙ্গল পান্ডেকে গুলি করেছিলেন, কিন্তু সেই গুলিও লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছিল। মঙ্গল পান্ডের  ভাই মাতাদিন  বাল্মীকি, ঈশ্বরী পান্ডের সাথে আরো বেশ কিছু সিপাহী এই মহাবিদ্রোহে সক্রিয়ভাবে এই অংশগ্রহণ করেছিল। এইভাবে বেশ কিছুক্ষন প্যারেড গ্রাউন্ডে বন্দুক ও তরোয়ালের লড়াই চলেছিল। বেগতিক দেখে মঙ্গল পান্ডে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু তিনি সফল হতে পারেননি। তিনি ধরা পরে  গিয়েছিলেন।  ঈশ্বরী পান্ডেকেও সেইসময় ধরা হয়েছিল। অবশেষে ৮ই এপ্রিল ১৮৫৭ সালে মঙ্গল পান্ডে ও তাঁর ভাই মাতাদিন বাল্মীকিকে এখানকার ধোবি ঘাটে  ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা হয়েছিল।

ব্যারাকপুর লাটভবন :
কলকাতার লাটভবনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে তৈরী করা হয়েছিল ব্যারাকপুরের লাটভবনটিকে।  ১৮০১ সালে  লর্ড ওয়েলেসলি এই বিশাল  বাড়িটি  নির্মাণ শুরু করেছিলেন। বাড়িটি নির্মাণ করার জন্য প্রচুর অর্থ খরচ হওয়ার জন্য বোর্ড অফ ডিরেক্টরস ওয়েলেসলিকে দেশে ফেরত পাঠাবার ব্যবস্থা গ্রহণ করলেন। ১৮০৫ সালে ওয়েলেসলি বাড়িটি  অসমাপ্ত রেখে দেশে ফিরে  গিয়েছিলেন। পরবর্তীকালে যত গভর্নর এখানে এসেছিলেন সকলেই এই লাটভবন ও ব্যারাকপুর পার্কের উন্নতিসাধন করেছিলেন। সেই পার্কই আজকের মঙ্গল পান্ডে পার্ক।

এশিয়ার প্রথম চিড়িয়াখানা :
যখন বোর্ড অফ ডিরেক্টরস ওয়েলেসলিকে দেশে ফেরাবার জন্য করার ব্যবস্থা করছে, তখন ওয়েলেসলি একজন পরিবেশপ্রেমী হিসেবে নিজেকে তুলে ধরার চেষ্টা করছিলেন।  তারই ফল স্বরূপ তিনি ১৮০০ সালে ব্যারাকপুরে তিনি এক পশুশালা তৈরী করেন। যেটা ব্যারাকপুর চিড়িয়াখানা নামে প্রসিদ্ধ লাভ করেছিল। এই  চিড়িয়াখানায়  বাঘ, সিংহ, হরিণ, ভালুক, বানর, ক্যাঙ্গারু, গন্ডার ও  উট এইসব পশু ছিল বলে শোনা যায়। পরবর্তীকালে আলিপুর চিড়িয়াখানা তৈরী হওয়ার পর এইসব পশু ওখান থেকে আলিপুর চিড়িয়াখানায় স্থানান্তরিত করা হয়।

বিখ্যাত ঘোড়দৌড় :
১৮০৬ সালে ব্যারাকপুরে ঘোড়দৌড় শুরু হয়েছিল। ঘোড়  দৌড়ের মাঠ  সেই সময় জমজমাট ছিল।কলকাতা থেকেও জনপ্রিয় ছিল এই ঘোড় দৌড়। সেই সময় তৈরী করা হয়েছিল একটা নতুন স্টেডিয়াম। কলকাতা থেকে ঘোড়দৌড় দেখতে আসার সুবিধার জন্য ১৮২৭ সাল নাগাদ রেল লাইন পাতা হয়েছিল। সেনানিবাসের ভিতরেই একটা রেলওয়ে স্টেশনও তৈরী করা হয়েছিল। পরবর্তীকালে অবশ্য এই ঘোড়দৌড় বন্ধ হয়ে যায়।

ব্যারাকপুরের ইতিহাসের গল্পতো মোটামুটি জানালাম এবার আমার ঘোরার কথায় আসি। গত বছর লক্ষ্মী পুজোর পরের রবিবারে ফেসবুকের "সহযোগী" নামের  একটা গ্রুপের বিজয়া উপলক্ষে দুপুরে  এক মিলন উৎসব ব্যারাকপুরের গঙ্গার পাড়ের একটা বাড়িতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই গ্রুপের কর্মকর্তা শ্রী বিশ্বজিৎ গুপ্তর অনুরোধে আমায় ওই অনুষ্ঠানে যোগদান করতে হয়েছিল। অনুষ্ঠানে যোগদানের আগে ও পরে আমি ব্যারাকপুরের কিছু দর্শনীয় স্থান ঘুরে নিয়েছিলাম। আজ সেইসব জায়গার কথা আপনাদের জানাব। ব্যারাকপুরের সব দর্শনীয় স্থানই  ইতিহাসের ছোঁয়ায় সমৃদ্ধ।  তা সে  আঠারো - উনিশ শতকের ইতিহাস হোক বা বিংশ শতাব্দীর ইতিহাস হোক। ইতিহাসকে বাদ  দিয়ে এই  শহরের কথা বলা সম্ভব নয়। আমি শিয়ালদহ স্টেশন থেকে ট্রেন ধরে ব্যারাকপুর স্টেশনে এসে নামলাম।

ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ে ১৮৬২ সালে শিয়ালদহ থেকে অধুনা বাংলাদেশের কুষ্টিয়া পর্যন্ত রেল লাইন পেতেছিল। ব্যারাকপুর স্টেশনটা সেই সময়ই চালু করা হয়েছিল। ১৮৬২ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর ব্যারাকপুরের উপর দিয়ে প্রথম ট্রেন চলেছিল। স্টেশনটা আজ দেখতে দেখতে  ১৫০ টা  বছর অতিক্রম করে ফেলেছে। স্টেশনটা সত্যিই দর্শনীয়। শুধু দর্শনীয় নয়, খুবই সুন্দর। পুরোনো আমলের বাড়ি, দেখলাম স্টেশনটিকে খুব সুন্দরভাবে রক্ষনাবেক্ষন করা হয়। স্টেশনের বাইরে রয়েছে অটো, টোটো ও রিক্সা স্ট্যান্ড রয়েছে। স্টেশন চত্বরেই একদিকে কয়েকটি লস্যির দোকান আর একদিকে ফার্স্ট ফুডের দোকান আছে।  এই স্ট্যান্ড থেকে একটু এগোলে হরেক রকমের দোকান আছে , তার মধ্যে মন হরণ করা বেশ কিছু খাবারের দোকানও রয়েছে দেখলাম। ব্যারাকপুরের বিখ্যাত দাদা-বৌদির বিরিয়ানির দোকানটাও একবার ভালো করে দেখে নিলাম। এইসব খাবারের দোকানের দিকে না তাকিয়ে মনটাকে  শক্ত করে আমি অটো স্ট্যান্ডে ফিরে এলাম। অন্নপূর্ণা মন্দির দর্শনের জন্য এখান থেকে একটা অটো রিক্সা ধরে প্রথমে তালপুকুরে এসে নামলাম।

শিবশক্তি অন্নপূর্ণা মন্দির :

অন্নপূর্ণা মন্দির

এক মন্দিরটি খুবই প্রাচীন এক মন্দির। মন্দিরটি রানী রাসমণির কনিষ্ঠা কন্যা জগদম্বা দেবী ১৮৭৫ সালে তৈরী করেছিলেন। মন্দিরটি  অবিকল দক্ষিনেশ্বরের ভবতারিণী মন্দিরের আদলে তৈরী। এই মন্দিরে দেবী অন্নপূর্ণা প্রতিষ্ঠিত আছেন। এছাড়া মহাদেবও গর্ভগৃহে বিরাজ করছেন। মন্দিরটির পিছনদিকে ৬ খানা ছোট আকারের শিবমন্দির রয়েছে। একটা সুন্দর নাটমন্দির ও নহবৎখানাও রয়েছে। মন্দিরের পিছনের দ্বার দিয়ে গঙ্গার ঘাটে যাওয়ার রাস্তা রয়েছে। ঘাটটিও খুব সুন্দর করে বাঁধানো। ঘাটটির নাম "রাসমনি ঘাট"। ঠাকুর শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণদেব চারবার এই মন্দির দর্শনে এসেছিলেন।  ঠাকুরের পদধূলিমাখা মন্দিরটি খুবই সুন্দর। এটি বঙ্গীয় স্থাপত্য শৈলীতে তৈরী নবরত্ন মন্দির। এখানে বেশ শান্ত  ও নিরিবিলি পরিবেশ বজায় রয়েছে। মন্দিরটিতে ঢোকার জন্য একটা বিশাল প্রবেশদ্বার রয়েছে। প্রবেশদ্বারের উপরে একটা বিশাল সিংহের মূর্তি রয়েছে। মন্দিরটি দর্শনার্থীদের জন্য সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২.৩০ ও বিকেল ৪টা  থেকে রাত্রি ৮টা খোলা রাখা হয়। এখানে কিছুটা সময় কাটাতে মন্দ লাগলো না। তবে  দক্ষিনেশ্বরের মন্দিরের পরিবেশের সাথে এখানকার পরিবেশের  আসমান-জমিন ফারাক রয়েছে।

জগন্নাথ মন্দির

জগন্নাথ মন্দির:  অন্নপূর্ণা মন্দির যাওয়ার পথে সুন্দর উজ্জ্বল কমলা রঙের একটা মন্দির দেখতে পেলাম। এই মন্দিরটি প্রভু জগন্নাথদেবের মন্দির। মন্দিরটির কারুকার্য খুবই আকর্ষণীয়। মন্দিরটির গেটের উপরে দেবী লক্ষ্মী ও বিষ্ণুর মূর্তি আর নীচের দিকে বিষ্ণুর দশাবতার মূর্তি স্থাপিত রয়েছে।  মন্দিরটির ভিতরে একটা নাটমন্দির ও গর্ভগৃহ রয়েছে। গর্ভগৃহে প্রভু জগন্নাথদেবের সাথে বলরাম ও সুভদ্রার মূর্তিও  রয়েছে ।

শতবর্ষ অতিক্রান্ত  ব্যারাকপুর পুরসভা :
রিক্সা করে যেতে যেতে পথে পড়ল ব্যারাকপুরের আর এক ইতিহাসের সাক্ষর ব্যারাকপুর পুরভবন। এটা কোনো দ্রষ্টব্যস্থান নয়, তবে অবশ্যই  এক ঐতিহ্যপূর্ণ স্থান।নবাবী আমলে ব্যারাকপুর ছিল সপ্তগ্রামের অধীন। ১৭৯১ সালে ইংরেজরা এখানে জমি কেনেন।  ১৮৬৯ সালে ব্যারাকপুরে দুটি  পৌরসভা (উত্তর ও দক্ষিণ) গঠিত হয়েছিল।  পরবর্তীকালে সাউথ ব্যারাকপুর পৌরসভা ভেঙে খড়দহ, পানিহাটি, টিটাগড় পৌরসভা গঠিত হয়েছিল। ১৯১৬ সালের ১লা এপ্রিল ব্যারাকপুর পুরসভা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল, যা আজ শতবর্ষ অতিক্রম করে গেছে। রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতায় জন্মগ্রহণ করলেও ব্যারাকপুরের মণিরামপুরে তাঁর পৈতৃক বাসভবনে দীর্ঘদিন বাস করেছিলেন। তিনি প্রায় ৩৪ বছর উত্তর ব্যারাকপুর পুরসভার পুরপ্রধান ছিলেন। তিনি ১লা মে ১৯৮৯ সাল থেকে ১৫ই  অক্টবর, ১৯২১ সাল পর্যন্ত পুরপ্রধান ছিলেন। তারপর তাঁর পুত্র ভবশঙ্কর ব্যানার্জী ৫ই জুন ১৯২২ সাল থেকে ৩রা নভেম্বর ১৯৩৪ সাল পর্যন্ত এখানে পুরপ্রধান হিসেবে কাজ করেছিলেন। ১৯২৫ সালের ৬ই আগস্ট রাষ্ট্রগুরু ব্যারাকপুরেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিলেন। সেই কারণে ব্যারাকপুর পুরসভা খুবই ঐতিহ্যপূর্ণ এক পুরসভা।

বার্থোলোমিউ চার্চ : 
এই চার্চটি তৈরী করা হয়েছিল আঠারো শতকে। ১৮৩১ সালে চার্চটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছিল। ১৯৫৬ সালের ২৬শে আগস্ট ব্যারাকপুর ডায়োসিস আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়।  সেই সময় রোনাল্ড উইনস্টন ব্রায়ান বিশপরূপে এখানে  নিযুক্ত হন। তিনি চার্চটির প্রভূত উন্নতি করেন।  সেই সময় থেকেই এই চার্চটি ক্যাথিড্রাল চার্চ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। পরবর্তীকালে এখানে ব্রিটিশ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মচারীরা থাকত। চার্চটি ব্যারাকপুর ক্যান্টনমেন্ট অঞ্চলে অবস্থিত। চার্চটির স্তাপত্যটিও  বেশ সুন্দর।

গান্ধী ঘাট :

গান্ধী ঘাটের প্রবেশদ্বার

জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতিবিজড়িত ঘাট হল এই গান্ধী ঘাট। যখন রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ গুরুতর  অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তখন মহাত্মা গান্ধী তাঁকে দেখতে ১৯২৫ সালের ৬ই মে ব্যারাকপুরে আসেন। ১৯৪৮ সালের ৩০শে  জানুয়ারী যখন মহাত্মা গান্ধী নিহত হন, তখন শাস্ত্র অনুযায়ী ভারতবর্ষের বিভিন্ন নদীতে তাঁর চিতাভস্ম অর্পণ করা হয়েছিল। সেই সময় পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল চক্রবর্তী রাজা গোপালাচারী এই ঘাটে জাতির জনকের চিতাভস্ম অর্পণ করেছিলেন। ১৯৪৯ সালের ১৫ই জানুয়ারী তদকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু এই ঘাটটির উদ্বোধন করেন। এখানকার দ্রষ্টব্য হল ক্যান্টিলিভার প্রজেকশন, মণ্ডপ ও বিখ্যাত ভাস্কর  সুনীল পালের তৈরী গান্ধী জীবন নিয়ে পোড়ামাটির আলেখ্যটি। ঢোকার মুখেই একটা সুন্দর দ্বার রয়েছে।  দ্বার দিয়ে প্রবেশ করার পর একটু এগোলেই

গান্ধী ঘাট

গঙ্গার তীরে বেশ সুন্দর একটা মিনার করা আছে।  মিনারটির  সাথে আড়াআড়িভাবে একটা বেশ প্রশস্থ ছাদ রয়েছে।  মিনারটির থেকে ধাপে ধাপে গঙ্গায় যাওয়ার সিঁড়ি নেমে গেছে।  মিনারটি ও সামনের দ্বার দুটিই শ্বেত শুভ্র রঙে রাঙানো রয়েছে।  এই সুন্দর পরিবেশে বসে গঙ্গার মনোরম হাওয়া খেতে বেশ ভালো লাগলো। এখানে কিছুক্ষন বসে এবার জওহরলাল নেহেরুর নামাঙ্কিত পার্কটি দেখতে গেলাম।

জওহরকুঞ্জ  পার্ক :
এই পার্কটি গান্ধী ঘাটের পাশেই অবস্থিত। তিরিশ টাকা টিকিটের মিনিময়ে পার্কটিতে  ঢুকতে হলো। গঙ্গার একদম পাশে ছোট বড় নানারকম গাছে সজ্জিত পার্কটি বেশ নিরিবিলি। পার্কটির ভিতরে একটা ছোট পুকুর আছে। কোথাও উঁচু,  কোথাও নীচু এইভাবে রাস্তাটিকে তৈরী করা হয়েছে।  ভিতরে একটা পাহাড়ি পরিবেশ তৈরী করার চেষ্টা করা হয়েছে। পার্কটিতে কয়েকটা ছাউনি দেওয়া বসার জায়গা রয়েছে। গঙ্গার ধারে এই রকম একটা বসার জায়গা পেয়ে গেলাম। নদীর মৃদু-মন্দ স্নিগ্ধ হাওয়া আর সাথে পাখিদের কলতানে  কিছুক্ষন বিশ্রাম করে নিলাম। পরিবেশটা বেশ ভালোই লাগছিল। এর পর মঙ্গল পান্ডের নামাঙ্কিত উদ্যানে যাবো।

মঙ্গল পান্ডে উদ্যান :
মঙ্গল পান্ডে উদ্যানটি ব্যারাকপুর ক্যান্টনমেন্ট অঞ্চলে অবস্থিত। এই উদ্যানে ঢোকার জন্য প্রত্যেকের জন্য ১৫ টাকা আর ক্যামেরার জন্য ৫০ টাকা দিতে হয়।  আমি কড়কড়ে ৬৫টা টাকা গচ্চা দিয়ে উদ্যানটিতে ঢুকলাম। উদ্যানটি  সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যে ৬.৩০ পর্যন্ত খোলা থাকে। ভ্রমণার্থীদের  জন্য একদম আদর্শ জায়গা।  উদ্যানটি বেশ সুন্দর।  পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে কিছুটা সময় কাটানোর জন্য খুব ভালো জায়গা। উদ্যানটির  মধ্যে কয়েকটি খাবারের স্টলও আছে। একটা বেশ বড় প্রবেশদ্বার দিয়ে ভিতরে ঢুকে দেখলাম বেশ খোলা মেলা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন জায়গাটা। উদ্যানের পুরো রাস্তাটি খুব সুন্দর করে বাঁধানো রয়েছে। এই রাস্তা দিয়ে একটু এগোতেই দেখলাম মঙ্গল পান্ডের একটা মূর্তি বসানো আছে। এক জায়গায় দেখলাম দুটি জিরাফের মূর্তি আর এক জায়গায় দেখলাম বাচ্ছাদের জন্য স্লিপ, দোলনা ও আরো কয়েক রকম খেলনা আছে।  দোলনার উল্টোদিকে একটা কামান রাখা আছে।  গঙ্গার ধার বরাবর বেশ কয়েকটা চেয়ার পাতা রয়েছে।  ওই চেয়ারে  বসে কিছুক্ষন সময় কাটানো খুব স্বাদ ছিল, কিন্তু পূরণ হলো না।  সবকটা চেয়ারই  যুবক-যুবতীরা দখল করে রেখেছে। যাইহোক সবুজে মোড়া এক অসাধারণ উদ্যান দেখলাম, মন ভরে গেল।

গান্ধী স্মারক সংগ্রহশালা :
ব্যারাকপুর রিভার সাইড রোডে একদম গঙ্গার ধারে প্রায় আট-নয় বিঘা জায়গা নিয়ে সংগ্রহশালাটি তৈরী করা হয়েছে।  ১৯৬৬ সালের ৭ই মে এটির উদ্বোধন করা হয়েছিল। গান্ধীজি সম্পর্কিত প্রায় হাজার খানেক আলোকচিত্র, বেশ কিছু চিঠিপত্র আছে। সংগ্রহশালাটিতে পাঁচটি কক্ষ রয়েছে। একটি কক্ষে বেশ বড় একটা দেওয়াল চিত্র রয়েছে, একটি কক্ষে গান্ধীজির জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত বিভিন্ন ঘটনাকে আলোকচিত্রের মাধ্যমে তুলে  ধরা হয়েছে, একটি কক্ষে গান্ধীজির ব্যৱহৃত বেশ কিছু সামগ্রী রয়েছে, একটি কক্ষে সুন্দর একটা গ্রন্থাগার আছে আর একটা কক্ষে বেশ কিছু দুষ্প্রাপ্য আলোকচিত্র রয়েছে দেখলাম। সংগ্রহশালাটি বেশ ফাঁকা। এখানকার এক কর্মচারী বললেন রবিবার সাধারণত একটু ফাঁকা থাকে, অন্যান্য দিন স্কুল -কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের ভিড় থাকে। রবিবার সাধারণত বাইরের দর্শনার্থীরা আসে।

যখন মানুষ রোজকার জীবনের যাতাকলে হাঁপিয়ে  ওঠে, তখন সে একটু মনের খোরাক খুঁজতে চায়।  মানুষভেদে মনের খোরাক বিভিন্ন হয়, তবুও বলবো এখানে একদিনের জন্য ঘুরতে  আসলে আপনার মন  অবশ্যই আনন্দে ভরে উঠবে, বিদ্রোহী সিপাহীদের জন্য  শ্রদ্ধায় মাথা নত  হবে।

কিভাবে যাবেন : 
শিয়ালদহ স্টেশন থেকে ব্যারাকপুরগামী ট্রেন ধরে সোজা ব্যারাকপুর স্টেশনে এসে নামুন।  স্টেশনের বাইরে অটো, টোটো ও রিকশার স্ট্যান্ড রয়েছে।  এই স্ট্যান্ড থেকে শহরের সবকটা  দ্রষ্টব্যস্থানগুলো ঘোরার  জন্য অটো বা অন্য কোনো গাড়ি ভাড়া করে নিন।  ভাড়া মোটামুটি ৩০০ থেকে ৪০০ টাকার মতো লাগবে। এছাড়া কলকাতা থেকে ব্যারাকপুর ট্রাঙ্ক রোড ধরে সড়কপথেও ব্যারাকপুর আসা যায়।

কোথায় থাকবেন :
যদিও কলকাতা থেকে এখানে ঘোরার জন্য রাত্রিবাসের কোনো প্রয়োজন নেই, তবুও আপনি যদি এখানে রাত্রিবাস করতে চান তাহলে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের  মালঞ্চ অতিথি নিবাসে থাকতে পারেন। এই অতিথি নিবাসটি কলকাতা থেকে বুক করতে হবে।

তারিখ : ১৪-০৫-২০১৯

ছবি ও লেখার স্বত্ব : সুদীপ্ত মুখার্জী

যোগাযোগ : ৯৮৩০৪২০৭৫০

 

 

Governor General’s House & Park at Barrackpore. Water colour by Edward Hawk Locker. 1808. Courtesy: British Library

Governor General’s House & Park at Barrackpore. Water colour by Edward Hawk Locker. 1808. Courtesy: British Library

ব্যারাকপুর – কলকাতার অদূরে ‘ছোট কলকাতা’

Barrackpore, some 16 miles away from Calcutta, turned into a little Calcutta or Chhota Calcutta. This happened because of the mastermind of Marquis Wellesley, who moved to Barrackpore in 1801 and occupied the Commander-in-Chief’s residence – one of the two bungalows bought by the Government with 70 acres of land when the cantonment was founded in 1775. This is where Wellesley lived for about 3 years devoting his mind in enlarging and improving the surrounding park area. He landscaped the gardens in the ‘English Style’, added an aviary, a menagerie and a theatre. The rustic hamlet emerged as a fashionable abode of the Britishers for sojourning.

by Ozias Humphry, pencil, chalk and watercolor, 1783
Marquis Wellesley (1760-1842) by Ozias Humphry, 1783
Barrackpore had a long history that began much before the coming of Job Charnock, who had been in Barrackpore for a while, raised a bungalow, and gathered a little bazaar closed by. Here his beloved wife of native origin had died. The area was previously ruled over by a line of Zamindars based in Nona Chandanpukur, Barrackpore. In ‘Ain-e-Akbari’, Abul Fazal (1596–97) referred to this place as Barbuckpur, and it was Chanak in `Manasa Vijay` written by Bipradas Pipilai (1495). Chanak and the other nearby towns were developed into chief marketing, trading and populous towns along the side of river Hooghly. The local name Achanak seems to be a localized version of Chanak.

Barrackpore, however, went into the British colonial history more significantly because of the two revolts. The first one was the 1824 insurgency led by Sepoy Binda Tiwary, and the second was the Sepoy Mutiny of 1857 led by Mangal Pandey. With the exception of these two horrifying experiences of tumult and fury, Barrackpore has always been a calmly country seat for the white’s leisurely pursuits contrary to the demanding living condition of the up-and-coming city of Calcutta.
In pre-Plassey Calcutta, the servants of East India Company used to live in dark and damp lodgings in the Fort, and warehouses where the gates shut upon them at night. After Plassey, the growth of the garrison and the influx of European officers and troops from Madras worsened the lodging condition. New quarters came up along the Avenue, Pilgrim Road, and Bow Bazar and, bypassing the native quarters of Dinga, and Coalinga, spread over the open ground of Chowringhee and Dharmatallah. [See The Social Condition of the British Community in Bengal: 1757-1800 By Suresh Chandra Ghosh. 1970] No wonder that the Europeans, gradually migrated from Tank Square – ‘the Belgravia of that day’ — and took up their abodes in Chowringhee ‘out of town’. [See ‘Calcutta in the olden time — its localities‘ In Calcutta review. Sept.1852.]. Earlier James Atkinson in a verse, published in 1824, described the condition of Calcutta more pungently as ‘an anxious, forced existence’. [ See City of Palaces, a poem by James Atkinson. 1824]

Barrackpore Bridge, hand-coloured photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

Barrackpore Bridge, hand-colored photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

The road from Calcutta to Barrackpore was opened to the public on the 26th of July, 1805, perhaps the best road constructed so far. Miss Emma Robert, the English lady traveler, wrote after two decades, that the ‘drives and rides about the city are not very numerous, nor very extensive, excepting towards Barrackpore.’ [See Scenes and characteristics of Hindostan; with sketches of Anglo-Indian society; v.1 by Emma Roberts. 1835]

 

In 1830 the Barrackpore Bridge, commonly called, ‘Shyambazar Bridge’, was constructed connecting Barrackpore Road to Calcutta at its northern end. The 100 ft long and 30ft wide Bridge was built by the Canal Superintendent, James Prinsep at the cost of Rs 20,529. It was a beautiful bridge, as revealed in the hand-colored photograph of the bridge and the road with running horses and carriages, taken by Frederick Fiebig in 1851.
J H Stocqueler while journeying through Brarackpur road looked out from his palanquin [ see Hand-book of India, a guide to the stranger and the traveler, ..ed. by Joachim Hayward Stocqueler. 1844], to the pleasing view of an extensive avenue of trees skirted by villages, gardens, and rice-fields. Cox’s Bungalow, the site of a building then used as a stable for relays of horses, was on the right-hand side of the road, and there the first change of relay proceeds onward through Barrackpore Cantonment.

Entrance to Barrackpore. Lithograph ( coloured ).Charles D’Oyly. 1848. Courtesy: British Library

Entrance to Barrackpore. Lithograph ( coloured ).Charles D’Oyly. 1848. Courtesy: British Library

Though a large station, Barrackpore presents an air of quiet and retirement like a country village; which joined to its military neatness and propriety, make it one of the sweetest places in India. The bungalows in four lines stand each separated from the others, every one surrounded by its own corn-ground, flower-garden, and neatly trimmed hedge; while the whole cantonment is at right angles intersected by well-kept roads, smooth as bowling-greens, and has the river in front and the parade ground in the rear. Government-house, and it’s beautiful grounds, are merely separated from the cantonments by a piece of water from the river, over which there is a bridge; and the park, as a drive, is at all times open to the European inhabitants. [See Life in India: Or, The English at Calcutta; v.2 by Monkland. 1828]

maria_callcott_by_thomaslawrence
Maria Graham (b1785-d1842) (in later life, Maria, Lady Callcott) An English travel writer. Portrait by Thamas Lawrence. 1819
How Barrackpore was in the first half of the 19th century can be figured out more from the true-to-life excellent paintings and photographs than the textual documents handed down to us – mostly official transactions and records, and also letters and diaries of the travelers and residents, which provide a human-side view, factual information apart. Unfortunately, not many travel-writers visited Barrackpore. The English lady, Maria Graham(later Lady Callcott) was an exception. In her book, Journal of a Residence in India, she left her lively and credible impressions of everything she saw there. Her account of Barrackpore commenced from Nov 20, 1810.

RIVER-SIDE

It was a delightful day she arrived by boat. The weather was so cool that ‘one really enjoys a river view walk’. Close to Calcutta, it is the busiest scene one can imagine; crowded with ships and boats of every form,—here a fine English East Indiaman, there a grab or a dow from Arabia, or a proa from the eastern islands. On one side the picturesque boats of the natives, with their floating huts; on the other the bolios and pleasure boats of the English, with their sides of green and gold, and silken streamers. Up the river, the scene became quieter but no less beautiful.

Barrackpore Ghaut, A hand-coloured photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

Barrackpore Ghaut, A hand-coloured photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

The trees grow into the water, and half hide the pagodas and villages with which the banks of the river are covered on both sides. It was late when we arrived here, and some of the pagodas were already illuminated for a festival; fireworks, of which the natives are very fond, were playing on the shore, and here and there the red flame of the funeral fires under the dark trees threw a melancholy glare on the water. From the opposite river bank, The missionaries Serampore had enjoyed the same view of Barrackpore riverside. Carey’s biographer, George Smith reproduced William Carey’s memory of ‘The garden slopes down to the noble river, and commands the beautiful country seat of Barrackpore, which Lord Wellesley had just built’. [See Life of William Carey,  by George Smith. 1909]

THE PARK

Barrackpore Ghaut, A hand-coloured photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

Barrackpore Ghaut, A hand-colored photograph by Frederick Fiebig. 1851. Courtesy British Library

Many of the Barrackpore goers maintained that it was not the Barrackpore House itself ‘but its accessories were the best features it can boast of’ – an aviary and a menagerie, a garden and a pleasant promenade, where the society of the station assemble, while one of the regimental bands plays upon the greensward, constitute the chief agremens of the place’. [See Hand-book of India, a Guide, ed by Stocqueller. 1844]

When Mrs Graham came to the Park of Barrackpore, the tamarind, acacia, and peepil trees, through whose branches the moon threw her flickering beams on the river, seemed to hang over our heads, and formed a strong contrast to the white buildings of Serampore, which shone on the opposite shore. We landed at the palace begun by Marquis Wellesley, but discontinued by the frugality of the Indian Company; its unfinished arches shewed by the moon-light like an ancient ruin and completed the beauty of the scenery. The area of the whole Park is nearly 350 acres and the cost was £9,577. Lord Wellesley started acquiring the land and making the Park.  In the North-East corner, he established the menagerie that continued to exist till the Zoological Gardens at Calcutta opened in 1876.

 

MENAGERIE

Menagerie at Barrackpore, Lithograph ( coloured ). Charles D’Oyly. 1848. Courtesy: British Library

Menagerie at Barrackpore, Lithograph ( coloured ). Charles D’Oyly. 1848. Courtesy: British Library

“A little nulla, or rivulet supplies several fine tanks in the park, which embellish the scenery and furnish food for a number of curious aquatic birds kept in the menagerie. The pelican, whose large pouch contains such an abundant supply of food, the produce of her fishing, for her young; the syrus, or Sarasa, a species
of stork, whose body is of a delicate grey color, and whose head, which he carries above five feet from the ground, is of a brilliant scarlet, shading off to the pure white of his long taper neck; and the flamingo, whose bill and wings are of the brightest rose-color, while the rest of his plumage is white as snow,—are the most beautiful of those who seek their food in the water. Among their fellow-prisoners are the ostrich, whose black and white plumes attract the avarice of the hunter; the cassowary, whose stiff hard feathers appear like black hair; and the Java pigeon, of the size of a young turkey, shaped and colored like a pigeon, with a fan-like crest, which glitters in the sun like the rainbow. [Graham]

the North-East corner of the Park known as Chiriakhana. The Governor General’s elephants used to be kept at Barrackpore. The place across the Grand Trunk Road to the North North-East of the Park was known for a long while as Hatikhana, although the last of the elephants were sold in Lord Elgin’s time. It was here in the Park that the poet-bishop first mounted an elephant — “the motion of which,” he confesses, “I thought far from disagreeable, though very different from that of a horse.” [See Thacker’s Guide to Calcutta ed. by Walter Kelly Firminger. 1906]

On Nov. 25, she wrote ‘The north winds are now so cold, that I find it necessary to wrap up in a shawl and fur tippet when 1 take my morning’s ride upon one of the governor-general’s elephants, from whose back I yesterday saw the Barrackpore hounds throw off in chase of a jackal’. “The quadrupeds in the menagerie are only two royal tigers, and two bears, one a very large animal, precisely like the bears of Europe; the other was brought here from Chittagong, where it is called the wild dog. His head is shaped like that of a dog, but bare and red about the muzzle; his paws are like those of the common bear, but his coat is short and smooth; he refuses to eat any kind of vegetable food, which the large bear prefers to flesh, and is altogether the most ferocious creature I ever saw. ”

GAITIES

On December 5, 1810, Graham was in great expectation of the festivity in Barrackpore. In three weeks, she mused, all the gay world will be assembled at Barrackpore, on account of the races, which are run close to the park-gate. This year there will be little sport, as the horses are indifferent, but I am told the scene will be very gay, “ with a store of ladies, whose bright eyes rain influence”. Barrackpore had a tradition of public merriments to celebrate important events. Three years ago. On the 12th of September 1807, Barrackpore celebrated the anniversary of the battle of Delhi. A splendid entertainment was given in ‘the new Theatre at Barrackpore’ at which were present the Right Hon’ble Lord Minto, the Governor-General, General St. Leger and Staff, the whole of the officers and ladies at the station, and a numerous party of visitors from Calcutta.  [See Life of William Carey, by George Smith. 1909]

Lord Wellesley was not in favor of horse race. He stopped horse racing and all sorts of gambling as soon he arrived in India; yet at the end of November 1809, there were three days’ races at a small distance from Calcutta. After a lull, the Calcutta Races again commenced under the patronage of Lord Moira. Stocqueler tells us “there at Barrackpore a race-ground existed, but races have not taken place anymore. The sports of the place are confined to an occasional steeple-chase, a run with the Calcutta hounds, and a few balls and public dinners.” [See Hand-book of India, a Guide, by Joachim Hayward Stocqueler. 1844]

A Cheeta Hun in Wellesley’s Park. Lithograph ( coloured ). Charles D’Oyly.1802. Courtesy: British Library

A Cheeta Hun in Wellesley’s Park. Lithograph (colored). Charles D’Oyly.1802. Courtesy: British Library

In the Park, there was also an excellent golf link much resorted to by Calcutta folk. Closer to the house there was a vast banyan tree beneath whose shade many a viceregal tiffin-party had assembled.   Mrs. Graham had some fascination for Indian custom s and traditions. On the first day she mentioned in her journal whatever she had seen on the river bank – the illuminated Hindu pagoda, festivity, fireworks, and the melancholy glare of the flame of the funeral – all important elements of Hindu life in a flash.

The cultural difference between the European and Asiatic societies did not deject her spirit of inquiry and appreciation of the estranged tradition of India. She writes:   “The other day, in going through a small bazaar near one of the park gates, 1 saw five ruinous temples to Maha Deo and one in rather a better state to Kali. As 1 had never been in a pagoda dedicated to her by that name, I procured admittance for a rupee. Her figure is of brass, riding on a strange form that passes here for a lion, with a lotus in the place of a saddle. Her countenance is terrific; her four hands are armed with destructive weapons, and before she is a round stone sprinkled with red dust. The sacrificial utensils are mostly of brass; but I observed a ladle, two lamps, and a bell of silver; the handle of the bell was a figure of the goddess herself. The open temple in the square area of the pagoda has been very pleasant, but is now falling into ruin, as are the priest's houses and everything around.”

Hindoo Pagodas below Barrackpore on the Ganges. Geoge Hunt. 1824. Courtesy: British Library

Hindoo Pagodas below Barrackpore on the Ganges. Geoge Hunt. 1824. Courtesy: British Library

As it shows, Graham was not unfamiliar with the Hindu themes of deities, and also her feelings on seeing the ruinous state of the temple. In a later note, however, she showed her deep concern, silently, about the desperate order of the native society, while recounting the horrid scene of dead bodies uncaringly floating in the river, vividly and dispassionately.

Bodies of the Dead

“The other night, in coming up the river, the first object I saw was a dead body, which had lain long enough in the water to be swollen and to become buoyant. It floated past our boat, almost white, from being so long in the river, and surrounded by fish; and as we got to the landing-place, I saw two wild dogs tearing another body, from which one of them had just succeeded in separating a thigh-bone, with which he ran growling away. Now, though I am not very anxious as to the manner of disposing of my body, and have very little choice as to whether it is to be eaten by worms or by fishes, I cannot see, without disgust and horror, the dead indecently exposed, and torn and dragged about through streets and villages, by dogs and jackals. Yet such is the daily sights on the banks of the Hoogly. I wish I could say they were the worst; but when a man becomes infirm, or has any dangerous illness, if his relations have the slightest interest in his death, they take him to the banks of the river, set his feet in the water, and, stuffing his ears and mouth with mud, leave him to perish, which he seldom does without a hard struggle; and should the strength of his constitution enable him to survive, he becomes a pariah; he is no longer considered as belonging to his family or children, and can have no interest in his own fortune or goods. About thirty miles from Calcutta, there is a village under the protection of the government, entirely peopled by these poor outcasts, the numbers of whom is incredible.

Earlier, Graham expressed her mind loudly and clearly– reacting to the unconditional submission of the Hindoos to the evils of the caste system. She felt degraded seeing the half-clothed, half-fed people, covered with a loathsome disease, without attempting ever to overstep the boundaries which confine them to it indelibly. “Perhaps there is something of pride in the pity”, she says, “I cannot help feeling for the Lower Hindoos, who seem so resigned to all that I call evils in life”. The story of this hapless lot stands in glaring contrast to the vibrant city life of Barrackpore.

The park-city of Barrackpore was designed and developed by the British and the British. It was an English garden Lord Wellesley planned and laid there. An English theatre, ballroom,  race-ground, golf-link, a Hotel Charnock came in place for their entertainment. There was something in the scenery of this place that reminds Maria Graham of the beauty of the banks of the Thames; ‘the same verdure, the same rich foliage, the same majestic body of water’.

The local inhabitants were, however, never allowed to enter the park-area except for work. Graham met a few of them while moving around, and had glimpses of their repulsive way of life. Graham never tried to pass judgment, nor any advice either. She questioned about the root of their malady – ‘how they came into the state, and what could amend it’. The spontaneous reply she received was: “It is the custom —   it belongs to their caste to bear this”. At the end of the century, Swamy Vivekanada found the key to her final question what unfortunately remains ignored ever since.

 

The Seat of the Governor-General 16 miles from Calcutta from Nature. November 1807′
Description: Watercolour, by Charles Ramus Forrest (d. 1827), of Barrackpore House and Park in Barakpur near Calcutta. Barakpur was originally a permanent barracks, but when Marquis Wellesley took over the Commander-in-Chief’s residence, in 1801, he decided to make improvements to the area. He commenced the building of a summer residence for future Governors-General, which consisted of only the first storey when he was recalled to England. Wellesley also landscaped the gardens in the ‘English Style’ and added an aviary, a menagerie, and a theatre. Barrackpore Park later became a popular place for leisure pursuits. The first storey of Wellesley’s proposed grand building was first added to by Sir George Barlow, acting Governor-General from 1805-1807, who converted each corner of the verandah into a small room. This view shows the building after these additions. Later in 1814-15, the building was greatly extended by the Marquis of Hastings who added a new storey.
Artist: Forrest, Charles Ramus

BARRACKPORE WEATHER

SL. No.

NAME

DESIGNATION

OFFICE ADDRESS

CONTACT NO.

1.

SHRI MANOJ KUMAR VERMA, IPS.

Ld. COMMISSIONER OF POLICE BARRACKPORE

B.T. ROAD, near Latbagan Main Gate, Barrackpore , Kol- 120.

03325920030

2.

SHRI DHRUBAJYOTI DE, IPS.

Jt. Commissioner of Police

Barrackpore

B.T. ROAD, near Latbagan Main Gate, Barrackpore , Kol- 120.

03325456000

3.

SHRI AJAY KUMAR THAKUR, IPS.

Jt. Commissioner of Police, North- ZONE Barrackpore Div. Addl. Charge ( DD) BKPC.

20 No. S.N. Banerjee Road, Barrackpore, Kol- 120.

033 25920245

4

SHRI BISWAJIT MAHATO IPS.

Dy. Commissioner of Police. TRAFFIC

Ashadeep Building, Pipe Road, Barrackpore, Kol- 120.

03325930051

5.

SHRI ANANDA ROY, IPS.

DCP South -Zone, BKPC

B.T Road, Near Panihati Telephone Exchange, Belgharia, Kol - 114.

033252 4999

6

SHRI AMANDEEP, IPS

DCP Central Zone, BKPC

Ashadeep Building, Pipe Road, Barrackpore, Kol- 120.

7.

SHRI PRASANTA KUMAR CHOWDHURY, IPS.

Dy. C.P. Special Branch

Barrackpore PC.

Old Chanakya Phari, near Sukanta Sadan, Barrackpore- Kol- 120

033 2545 3080

8.

SHRI KUMAR SUNNY RAJ, IPS

ACP-Naihati

Garifa OP, Ghosh Para Road Naihati

2588-0093

9.

SHRI AMIT VERMA, IPS.

ACP- Barrackpore, Barrackpore PC.

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

03325924644

10.

SK. SAMSUDDIN, WBPS.

ACP- Belghoria , Barrackpore PC.

B.T Road, Near Panihati Telephone Exchange, Belgharia

03325235100

11.

SMT. SHALINI GHOSH.WBPS.

ACP -( HQ) Barrackpore

B.T Road, Near Latbagan Main Gate, Barrackpore, Kol- 120

033 2592 0150

12.

SHRI SHITALA PRASAD PANDEY, WBPS .

ACP- EB Barrackpore P.C

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

0332592 4644

13.

SHRI SIBASIS GHOSH, WBPS.

ACP - Traffic Barrackpore. &ACP (AP)& ACP Naihati

Barrackpore Emergency force Line, Barrackpore opp Latbagan Main Gate, Kol- 120.

033 2592 3042

14

SMT.ARPITA GUHA NEOGI,WBPS.

ACP-I SB, Barrackpore

Old Chanakya Phari, Barrackpore, Kol-120.

033 2593 0066

15

SHABANA KHATOON, WBPS,

ACP-DD-II

Barrackpore

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

033 2593 3333

16

SHRI ALOK KUMAR MITRA , WBPS.

ACP - Dum Dum

Sodepore O.P near Sodepur RIy. Stn, Kol - 110.

0332565 4044

17.

SHRI VIDYASAGAR CHOUBEY, WBPS.

ACP Traffic Dunlop, Barrackpore PC.

Ashadeep Building, Pipe Road, Barrackpore, Kol- 120.

03325453242

18

SHRI ASHIM KUMAR PANJA, WBPS.

ACP-II SB, Barrackpore

Old Chanakya Phari, Barrackpore, Kol-120.

033 2593 0066

19

SHRIGOURI PRASANNA BANDHU

Court Inspector.

Cantonment , Barrackpore, North 24 Parganas.

8001900573

20

SHRI DEBDAS MAZUMDER

TI. Airport TG

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

9836939000

21

SHRI AKSHAY PAUL

O/C Licensing &E.B

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

9434193131

22

SHRI MANOJIT KUMAR DAS

MTI, Barrackpore

Park road, near Annapurna Kali mondir, PS- Titagarh.

9051731333

23

SI. ANANDA MODAK

RO. Barrackpore

Barrackpore Emergency Force Line, Barrackpore

9051039576

24.

SHRISARADA SANKAR MUKHERJEE

O/C TRAFFIC (South) Barrackpore.

Belghoria Police Station Building, 55 B.T. Road, Kolkata 700056

033 2564 0001

25.

SHRI SARADA SANKAR MUKHERJEE

Addl charge -O/C Traffic AIRPORT Traffic Guard Barrackpore

Kamar Danga O.P. 74 Jessore Road PS, Dum Dum Kolkata 700074.

0332564 0001

26.

SHRI SIDDHARTHA GOSWAMI

R.I (HQ) B.K.Pore P.C

R.I. (HQ), Barrackpore P.C

9073343445

27.

SHRI SUBRATA CHANDA

O/CNORTH Traffic Guard, Barrackpore

East Kapte para road, PO- Authpur, PS Jagaddal, North 24 Parganas, Pin 720128.

03325810002

28.

SHRI RAJESH MONDAL

O/CCentral Traffic Guard. Barrackpore

Inside of Barrackpore Police Lines, PO Barrackpore PS Titagarh Kol- 700120.

9073343439

29.

SHRI PRANAB GHOSH DOSTIDER

I/C Barrackpore Telecom Barrackpore

Barrackpore Emergency Force Line, Barrackpore opp.

9073395966

30.

SHRI SOUMYA BANDHOPADHYAY

Ins. SB Barrackpore

SB Office, Barrackpore,

Kol- 120.

9434157357

31.

SHRI SOURAV MOZUMDER

O/C Cyber Crime PS.

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

9073343434

32.

SHRI RAKESH CHANDRA SADHUKHAN

Ins. DD BKPC

DD Office, Barrackpore,

Kol- 120.

9647500467

33

SHRI SHIBENDU GHOSH

O/C Arms Act. Add. Charge IC. Control Room, BKPC.

Barrackpore Emergency Force Line, Barrackpore.

9836529992

34

SHRI SOUMYA DUTTA

IC MPB BKPC

108, Artilary Road, Barrackpore, Kol- 120.

9434245629

35.

SHRI KARTICK MOHN GHOSH

Ins. DD BKPC

DD Office, Barrackpore,

Kol- 120.

9732380050

Updated on 24/06/2020

Barrackpore RTO MAP

Barrackpore RTO MAP

Barrackpore RTO( barrackpore motor vehicles office )

Barrackpore RTO is entrusted with the responsibility of providing an efficient public transport system to its citizens. The regional transport department of Barrackpore deals with regulatory and enforcement functions assigned to it under section 213(1) of the Motor Vehicles Act, 1988. The Barrackopre RTO comes under the Transport Department of West Bengal and is headed by the transport commissioner of the state.

Functions of Barrackpore RTO

Issuance and renewal of a driving license
Conduct driving test
Grant and renewal of permits
Collection of road tax
NOC for vehicle transfer
Issue new and duplicate registration Certificate
Issue fitness certificate for commercial vehicles
Issues permits for public transport drivers
Ensure road safety and pollution control measures

RTO Office in Barrackpore

RTO - Barrackpore
THE SUB DIVISIONAL OFFICER MOTOR VEHICLES DEPARTMENT BARRACKPORE
Barrackpore Pincode: 700120

Phone No: 033-25920616

RTO Fees In Barrackpore

New Licence Fees: ₹ 430

For Licence Renewal Fees: ₹ 250

Bike Registration Fees: ₹ 60

Get Temporary No Fees: ₹ NA

Get Fancy No Fees: ₹ NA

Get Duplicate Licence Fees: ₹ NA

How to check Barrackpore RTO Driving Licence status?

Barrackpore RTO Driving license applicants can also use the Online Facility to Track the Status of their Driving Licence Application. Note that after 30 days, it will show the status of the application, and need the application number and mobile number to check your driving license application status. if you submit your driving license application successfully then You don’t have to go to the RTO office to check your application status because the online facility is available via sarthi parivahan website (sarathi.parivahan.gov.in).
Click on https://sarathi.parivahan.gov.in/sarathiservice/stateSelection.do

What is Barrackpore RTO Helpline Number?

1. RTO North 24 Parganas - (033) 2584 6268
2. ARTO Barrackpore - +91 97345 42530
3. Mail ID : rton24parganas@gmail.com

Is it possible to Barrackpore RTO Online Application Submission?

You can apply online for a driving licence on sarthi parivahan website

Step 1: First, Visit sarthi parivahan website https://parivahan.gov.in/parivahan/ and open this website.

Step 2: Select from the menu to online services -> Driving Licence Related Services.

Step 3: Select ‘Apply For Driving Licence’

Step 4: Upload required documents and pay required fees

What is the website for Barrackpore RTO?

Barrackpore sub Divison official website: http://www.barrackpore.gov.in/HTM/SDOBKP_MotorVehicle.htm

For motor vehicles related queries https: //parivahan.gov.in/parivahan/

What is the code for Barrackpore RTO?

RTO Code WB-23 & WB- 24

 

BARRACKPORE WEATHER

Barrackpore has 4 different Pin Codes. Each for Different areas. Please check our detailed Maps for Each Pin Code.

Barrackpore PIN Code 700122  Area One

 

Barrackpore pin code 700122

Barrackpore pin code 700122

Barrackpore PIN Code 700120  Area Two

 

Barrackpore PIN Code 700120

Barrackpore PIN Code 700120

Barrackpore PIN Code 700123  Area Three

Barrackpore PIN Code 700123

Barrackpore PIN Code 700123

Other Pin Codes of Barrackpore Area